|

বাল্যবিয়েতে খাবার মাটিতে ফেলে বিপাকে ভ্রাম্যমাণ আদালত

প্রকাশিতঃ ১:৫৬ অপরাহ্ন | জুন ৩০, ২০১৮

বাল্যবিয়েতে খাবার মাটিতে ফেলে বিপাকে ভ্রাম্যমাণ আদালত

স্টাফ রিপোর্টারঃ

বিয়ের সকল প্রস্ততি সম্পন্ন, লোকজন খাওয়া দাওয়া করছিল, হঠাতই ভ্রাম্যমাণ আদালতের উপস্থিতি দেখে শুরু হয় ছোটাছুটি। বিয়ে বাড়িতে ৪০০ জনের খাবার মাটিতে ফেলে জনতার তোপের মুখে পড়েন ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক।

খবর পেয়ে অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। বাল্য বিয়ের আসর থেকে বর-কনে উধাও। তবুও বাল্যবিয়ের আয়োজন করার অভিযোগে দুইজনকে আটক করে কারাদন্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক। শুক্রবার বিকেলে বগুড়া শহরের নারুলী খন্দকার পাড়ায় এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয়রা জানান, নারুলী খন্দকার পাড়ার দরিদ্র অটোটেম্পু চালক বাবু মিয়ার দশম শ্রেণিতে পড়ুয়া মেয়ে রজনী খাতুনের সাথে জেলার সোনাতলা উপজেলার হলিদাবগা গ্রামের শফিকুল ইসলামের ছেলে রকির বিয়ের দিন ঠিক করে। সে মোতাবেক শুক্রবার বিয়ের দিন নির্ধারণ করে প্রতিবেশী আব্দুর রশিদ মাস্টারের বাড়িতে অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। বিয়ের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করে দুপুরের পর থেকে সেখানে লোকজন খাওয়া দাওয়া শুরু করে।

বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আজিজুর রহমানের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালত বিয়ে বাড়িতে উপস্থিত হন। ভ্রাম্যমাণ আদালতের উপস্থিতিটের পেয়ে বাবু মিয়া ও তার স্ত্রী ফাইমা মেয়েকে নিয়ে সটকে পড়েন। এসময় ভ্রাম্যমাণ আদালত বাল্যবিয়ের আয়োজন করার অভিযোগে বাবু মিয়ার মামা সেকেন্দার আলী, খালা সুইটি বেগম এবং বাবু মিয়ার ভাই রকিকে আটক করেন।

স্থানীয়রা জানান, এছাড়াও ভ্রাম্যমাণ আদালতের সঙ্গে থাকা পুলিশ বিয়ে বাড়িতে রান্না করা ৪০০ জনের খাবার মাটিতে ফেলে দেয় এবং চেয়ার টেবিল উল্টে দেয়। খাবার নষ্ট করার দৃশ্য দেখে লোকজন উত্তেজিত হয়ে উঠেন এবং ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারকের কাছে খাবার নষ্ট করার কারণ জানতে চান।

এ নিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেলে থানা থেকে অতিরিক্ত পুলিশ সেখানে গিয়ে পরিস্থিতি নিযন্ত্রণে আনে। ভ্রাম্যমাণ আদালতের হাতে আটক অবস্থায় অটোটেম্পু চালক বাবু মিয়ার মামা সেকেন্দার আলী অসুস্থ হয়ে পড়লে লোকজন বিক্ষুদ্ধ হয়ে ওঠেন। একপর্যায় ভ্রাম্যমাণ আদালত জনগণের তোপের মুখে পড়েন এবং সেকেন্দোর আলীকে ছেড়ে দেন।

পরে তাকে শহিদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে আটক দুইজনকে নিয়ে যাওয়া হয় সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে। সেখানে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে আদালতের কাজে বাধা প্রদানের দায়ে সুইটি বেগমকে একমাস এবং রকিকে দুইমাস কারাদন্ড দিয়ে জেল হাজতে পাঠানো হয়।

বগুড়া সদর থানার এসআই জিলালুর রহমান জানান, ভ্রাম্যমাণ আদালত দেখে মেয়ের আত্মীয়-স্বজন উত্তেজিত হয়ে ওঠেন এবং বিচারকের সঙ্গে খারাপ আচরণ করেন। একারণেই আদালতের বিচারক খাবারগুলো ফেলে দিয়েছেন।

তবে ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আজিজুর রহমান জানান, বিয়ে বাড়িতে খাবার কে নষ্ট করেছে তা তিনি দেখেন নি। বাল্যবিয়ে বন্ধ করতে গেলে আদালতের কাজে বাধা দিলে দুইজনকে আটক করে সাজা দেওয়া হয়েছে।

দেখা হয়েছে: 50
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।