|

বাল্যবিয়ে প্রতিরোধ: দায় কি কেবল প্রশাসনের!

প্রকাশিতঃ ৭:৩৩ অপরাহ্ন | নভেম্বর ২৪, ২০১৮

আরিফ আহমেদ, গৌরীপুর:
“বাল্যবিয়ে একটি সামাজিক ব্যাধি” বর্তমানে সমধিক পরিচিত একটি বাক্য। সরকারি প্রচার মাধ্যম ও বিভিন্ন এনজিওর কল্যাণে প্রায় সকল মানুষ জানে বাল্যবিয়ের কুফল সম্পর্কে। তারপরও থেমে নেই বাল্যবিয়ে। ইতোমধ্যে অনেক উপজেলাকে বাল্যবিয়ে মুক্ত ঘোষণা করা হয়েছে। তাই বলে এসব উপজেলায় বাল্যবিয়ে ঘটছে না, তা কিন্তু নয়!

সমস্যাটি সামাজিক, সমাজের আর দশটা মানুষের সামনেই এই ব্যাধিটি ঢাক-ডোল পিটিয়ে ঘটে থাকে কিন্তু সমাজের কেউ এর দায় নিতে রাজি নয়! তাহলে দায়টা কার? অন্তরালে কিছু মানুষ থাকে যারা অতিগোপনে বাল্যবিয়ের সংবাদটি সাংবাদিক বা প্রশাসনকে জানান। প্রশাসন তার সাধ্যমতো বাল্যবিয়ে প্রতিরোধের চেষ্টা করছে। কিন্তু সব খবর কি সাংবাদিক বা প্রশাসন পর্যন্ত পৌঁছে? তাছাড়া বাল্যবিয়ে প্রতিরোধে গেলে প্রশাসন কি সামাজিক সহযোগিতা পাচ্ছে?

সাম্প্রতিক ময়মনসিংহ গৌরীপুরে একটি বাল্যবিয়ে প্রতিরোধ করতে গেলে এর নাটকীয় ঘটনা হতভাগ করে দেয় প্রশাসন ও সাংবাদিকদের।

গত বৃহস্পতিবার (২২ নভেম্বর) কুলছুম আক্তার নামে এক মধ্যবয়স্ক মহিলা সকাল থেকে এসে বসে রইলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ের সামনে। নির্বাহী অফিসার বিশেষ কাজে বাইরে আছেন, তিনি অপেক্ষা করতে থাকেন। এরি মাঝে খবর পেলেন তার অপ্রাপ্ত বয়ষ্ক ছেলেকে নিয়ে বর যাত্রা শুরু হয়ে গেছে। এবার অপেক্ষার সাথে তার চোখে ঝরতে থাকলো অশ্র“।

খবরটি গৌরীপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফারহানা করিম বোকাই নগর ইউনিয়নে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর কতৃর্ক আয়োজিত মাঠ দিবসের অনুষ্ঠান চলাকালীন সময়ে সাংবাদিকদের কাছে জানতে পারেন। তিনি অনুষ্ঠান শেষ করেই দ্রুত ছুটে যান উপজেলা পরিষদের উদ্দেশ্যে। সময় নষ্ট না করে গাড়িতে বসেই অপেক্ষমান ঐ মায়ের সাথে কথা বলেন তিনি।

উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো: আবুল মনসুরকে ও প্রয়োজনীয় সংখ্যক পুলিশ সাথে নিয়ে তিনি ছুটে চলেন বাল্যবিয়ে প্রতিরোধে। ঠিকানা মতো বিয়ের বাড়িতে পৌঁছে বর-কনের খোঁজ করলে উপস্থিত সকলেই জানান- এটা বিয়ে বাড়ি নয়, মিলাদ মাহফিল (চল্লিশা) অনুষ্ঠান শেষে খাওয়া দাওয়া চলছে! নির্বাহী অফিসার ঠিকানাটি আবারো নিশ্চিত হয়ে বর-কনে ও কনের বাবা-মায়ের খোঁজ করেন। কিন্তু উপস্থিত শতাধিক মানুষ কেউ এ ব্যাপারে সহযোগিতা করেনি। এমনকি ৮০ ঊর্ধ্ব এক নারী এসে জানান- আজকের এ অনুষ্ঠানটা তার মৃত স্বামীর জন্য করা হচ্ছে!

বাল্যবিয়ের সুনির্দিষ্ট তথ্য থাকায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার (প্রথম শ্রেণির নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট) ফারহানা করিম পুলিশকে নির্দেশ দেন- ঘরে ঘরে তল্লাশি করার জন্য। পুলিশ তল্লাশি করে এক ঘরের খাটের নিচে নতুন বর কনের জামা-কাপড় ও জুতা খোঁজে পায়। নিশ্চিত হয়ে তিনি কনের বাবা মায়ের নামে মামলা করার হুমকি দিলে কিছুক্ষণ পর আনুমানিক ১৮/২০ বছরের একটি মেয়ে এসে জানায় এখানে তার বিয়ের অনুষ্ঠান চলছে! এসময় মেয়েটির বেশভূষা দেখে সহকারী কমিশনার (ভুমি) আবুল মনসুর সন্দেহ পোষন করলে মেয়েটি দীঢ় ভাবে বলে- এটা তারই বিয়ের অনুষ্ঠান।

এসময় উপস্থিত সকলেই বলে- হ্যা, এই মেয়েই কনে। পুরো ঘটনাটিই সন্দেহজনক হওয়ায় নির্বাহী অফিসার মেয়েটি সহ আরো দুইজনকে আটক করে উপজেলা পরিষদে নিয়ে যান।

নাটকীয়তা এখানেই শেষ নয়- কিছুক্ষণের মধ্যেই জানা যায়, কনে দাবীদার মেয়েটি আসলে এক সন্তানের জননী! তার এক বছরের একটি সন্তান রয়েছে। অন্যের প্ররোচনায় সে নিজেকে কনে দাবী করেছে। ঘটনাটি ঘটেছে গৌরীপুর ১নং মইলাকান্দা ইউনিয়নের গোবিন্দপুর গ্রামে।

ঘটনার দিন সন্ধ্যায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার (প্রথম শ্রেণির নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট) ফারহানা করিম নিজ কার্যালয়ে মোবাইল কোর্ট বসিয়ে- বাল্যবিয়ের সহযোগিতার অপরাধে নিজেকে কনে দাবী করা সুমি আক্তারকে (১৯), স্বামী: উজ্জল মিয়া, গ্রাম. মেছিডেঙ্গি, গৌরীপুর, ময়মনসিংহ, বাল্যবিয়ে প্রতিরোধ আইন ২০১৭, ধারা ০৮ অনুযায়ী ৭ দিনের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করেন।

এছাড়া একই আইন ও অভিযোগে স্থানীয় যুবক ইকবাল হাসান জুয়েল, পিতা. মৃত. ফজর আলী, গ্রাম. গোবিন্দপুর, নগদ ১০ হাজার টাকা ও মো: আব্দুল জব্বার (৮০) পিতা. মৃত. শাহাদৎ আলীকে, গ্রাম. কাউরাট, গৌরীপুর, ময়মনসিংহ, পাচঁশত টাকা জরিমানা করা হয়।

উপরোক্ত ঘটনাটি আমাদের সামাজিক অবক্ষয়ের চিত্রটি নতুন করে দেখিয়ে দেয়। কোথাও বাল্যবিয়ে ঘটলে সমস্ত দায় চাপিয়ে দেয়া হয় প্রশাসনের ঘাড়ে! তাহলে আমাদের সামাজিক ভিত্তি কোথায়? স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের কাজ কী? একটা সমাজে ছাত্র, শিক্ষক, সমাজকর্মী, ব্যবসায়ী, কৃষকসহ কতো ধরনের মানুষ থাকে। যে সমাজের শত শত মানুষের চোখের সামনে একটা অন্যায় কে আড়াল করতে গিয়ে একটা নির্দোষ মানুষকে বিপদে ঠেলে দেয়া হয়, সে সমাজের মনুষ্যত্ব, নৈতিকতা নিয়ে কি আমাদের লজ্জা করা উচিত নয়!

দেখা হয়েছে: 25
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • ভারপ্রাপ্ত সম্পাদকঃ ফয়সাল হাওলাদার মোবাইল ০১৭৩২-৩৭৯৯৮২
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।