|

স্যালাইনের সঙ্গে ৫ ইনজেকশন: মায়ের পেটে নবজাতকের মৃত্যু !

প্রকাশিতঃ ১০:৩০ অপরাহ্ন | অগাস্ট ২৯, ২০১৯

স্যালাইনের সঙ্গে ৫ ইনজেকশন : মায়ের পেটে নবজাতকের মৃত্যু !

রুবেল হোসেন, লক্ষ্মীপুরঃ লক্ষ্মীপুরে এক প্রসূতিকে স্যালাইনের সঙ্গে ৫টি ইনজেকশন পুশ করে জোরপূর্বক প্রসব করাতে গিয়ে নবজাতকের মৃত্যুর অভিযোগ পাওয়া গেছে। এতে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে গুরুতর অবস্থায় প্রসূতি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার (২৯ আগস্ট) দুপুরে প্রসূতি নুর নাহার প্রিয়ার স্বামী সহিদুল ইসলাম রনি বাদী হয়ে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেন। এতে ধাত্রী আলেয়া বেগম ও অজ্ঞাত ৪ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়।

অভিযুক্ত আলেয়া বেগম সদর উপজেলার দালাল বাজার তালতলা এলাকার (খোয়াসাগর দিঘীর পাড়) শাহাবুদ্দিনের স্ত্রী। অভিযোগের প্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার দুপুরে সদর থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) আবুল বাসার ওই ধাত্রীর বাড়িতে গিয়ে প্রাথমিক তদন্ত করেন।

অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, গত ২৬ আগস্ট দুপুরে সদর উপজেলার সমসেরাবাদ এলাকার সহিদুল ইসলাম রনির স্ত্রী প্রিয়ার প্রসব বেদনা উঠে। এসময় তাকে লক্ষ্মীপুর মা ও শিশু কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে তাকে ব্যাথা নিয়ন্ত্রণের ওষুধ দিয়ে ৬ সেপ্টেম্বর আবারো হাসপাতালে যাওয়ার জন্য বলে কর্তব্যরত চিকিৎসক। বাড়িতে যাওয়ার সময় প্রসূতির মা মিনারা বেগম তাকে দালাল বাজার মা ও শিশু কেন্দ্রে নিয়ে যায়। সেখানে গিয়ে দেখেন চিকিৎসক ছুটিতে রয়েছেন।

এ সুযোগে ধাত্রী আলেয়া বেগম প্রসূতির মাকে বুঝিয়ে এক ঘন্টার মধ্যে প্রসব করানোর কথা জানান। ব্যাথায় মেয়ের কষ্ট দেখে মাও রাজি হয়ে যান। একপর্যায়ে আলেয়া বেগম তার দালালবাজার খোয়াসাগর দিঘীর পাড়ের বাড়িতে নিয়ে যায় তাদের। এসময় ওই ধাত্রী একটি ইনজেকশন পুশ করে প্রসূতিকে অচেতন করা হয়। পরে প্রসূতির শরীরে স্যালাইন গেঁথে সেখানেও ৪টি ইনজেকশন পুশ করে। এতে পেটের ভেতরেই চটপট করে নবজাতকের মৃত্যু হয়।

পরে জোরপূর্বক প্রসব করাতে গিয়ে নবজাতকের শরীরের কিছু অংশ প্রসূতির পেটে থেকে যায়। এতে প্রসূতির প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়। সেখান থেকে তাকে মুমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করে শহরের একটি প্রাইভেট ক্লিনিকে ভর্তি করে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

আলেয়ার বিরুদ্ধে সদর উপজেলার মধ্য বাঞ্চানগর গ্রামের আরিফ হোসেনের স্ত্রী শিল্পী আক্তার ও একই গ্রামের রুনু আক্তারসহ একাধিক নারীর গর্ভপাতের সময় নবজাতককে হত্যার অভিযোগ রয়েছে।

জানতে চাইলে প্রসূতির স্বামী সহিদুল ইসলাম রনি বলেন, আমার স্ত্রী ও বাচ্চার কোন সমস্যা ছিল না। তাদের ডাক্তারি রিপোর্টগুলোতেও কোন সমস্যা ধরা পড়েনি। আলেয়ার ভয়ংকর সাহসে আমার বাচ্চা মারা গেছে। এখন আমার স্ত্রীও আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি আছে। আমি ভয়ংকর আলেয়ার শাস্তি চাই।

অভিযোগ অস্বীকার করে আলেয়া বেগম বলেন, রোগীকে বাঁচাতে ডাক্তাররাও ইনজেকশন পুশ করে। এখানে দোষের কিছু ছিল না। প্রসূতি ও বাচ্চার অবস্থাও ভালো ছিল না। আমি বলেছি প্রসূতিকে ডাক্তারের কাছে নিয়ে যেতে। কিন্তু তারা আমাকে দিয়েই গর্ভপাত করতে বাধ্য করেছে।

লক্ষ্মীপুর সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) একেএম আজিজুর রহমান মিয়া বলেন, পুলিশকে পাঠিয়ে ওই ধাত্রীকে থানায় আসতে বললেও আসেনি। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে অভিযোগকারীকে পাঠানো হয়েছে।

এ ব্যাপারে লক্ষ্মীপুর পরিবার পলিকল্পনা বিভাগের উপ-পরিচালক আশফাকুর রহমান মামুন বলেন, ধাত্রী কোনভাবেই প্রসূতিকে ইনজেকশন কিংবা স্যালাইন পুশ করতে পারবে না। অবস্থার অবনতি দেখলে রোগীকে হাসপাতালে পাঠাতে হবে।

দেখা হয়েছে: 88
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।