|

মায়ের মৃত্যুবার্ষিকীতে ন্যানসির আবেগঘন চিঠি

প্রকাশিতঃ ৩:০২ অপরাহ্ণ | ডিসেম্বর ২০, ২০১৮

বিনোদন বার্তাঃ

আজ জনপ্রিয় সঙ্গীতশিল্পী ন্যানসির মায়ের মৃত্যুবার্ষিকী। ২০১২ সালের এদিনে ন্যানসি তার মাকে হারিয়েছেন। মায়ের মৃত্যুবার্ষিকীতে মাকে নিয়ে আবেগঘন এক চিঠি লিখেছেন এই কণ্ঠশিল্পী। চিঠিতে শৈশবের স্মৃতি, অভিযোগ আর ভালোবাসার কথা তুলে ধরেছেন তিনি।

বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে ন্যানসি তার ফেসবুকে চিঠির পাশাপাশি একটি ছবি প্রকাশ করেন। যেখানে বাবা-মায়ের কোলে ন্যানসি ও তার বড় ভাই জাকারিয়া নোমান জনি।

পাঠকদের জন্য ন্যানসির সে চিঠি তুলে ধরা হলো-

‘আম্মা’ তোমার রুপ, গুণ এই দুটোর কোনোটাই আমি পাইনি। তুমি বলতে, কালো বাপের কালো মেয়ে। ভীষণ রাগ হতো তখন। ভাবতাম, দেখতে সুন্দর বলে তুমি ভাইয়াকে বেশি আদর কর, হিংসে হতো খুব! আমাদের ফটো অ্যালবামগুলোতে তোমার আর আমার ছবি নেই বললেই চলে। এ ছবিতেও দেখো তোমার কোলে আমি নেই।

মা তার ছেলেকে বেশি আদর করত আর ন্যানসিকে কম, এমন অভিযোগ এনে ন্যানসি লিখেছেন- ‘শীতের রাতে ভাইয়া আরামসে লেপ মুড়ি দিয়ে ঘুমাত অথচ যত রাতই হোক, পড়া শেষ না করে আমি ঘুমোতে পারতাম না। ভোর বেলা উঠে নামাজ পড়া, কোরআন শরীফ তেলাওয়াত করা, রেওয়াজ করা, টিচারের কাছে পড়তে যাওয়া, স্কুল-পরীক্ষা, নাচের ক্লাস, গানের ক্লাস সবই সময়মত করতে হতো। কিন্তু ভাইয়ার বেলায় সাত খুন মাফ। কত অভিযোগ, অভিমান পুষে রাখতাম তুমি তার কিছুই জানতে না।

বাবার কোলে ন্যানসি ও মায়ের কোলে ভাই জাকারিয়া নোমান জনি

মায়ের ভালোবাসা প্রসঙ্গে তিনি আরও লেখেন- তুমি আমায় একটু হলেও ভালোবাস, সেটা প্রথম কবে জানলাম জানো? যেদিন চলন্ত সাইকেলের চাকার ভেতর আমার বাঁ পা ঢুকে গিয়ে, পায়ের নিচের দিকের মাংস থেঁতলে গেল সেদিন। আমার চাইতেও তুমি বেশি কেঁদেছিলে। জানো তোমার কান্নার শব্দ শুনে আমার কি যে ভাল লাগছিল! মনে হচ্ছিল ভালবাসার অঘোষিত প্রতিযোগিতায় ভাইয়াকে হারিয়ে আমি জিতে গেছি।

তিনি আরও লিখেছেন- আম্মা দেখো আমি কত বোকা। তোমার মৃত্যু আমাকে জানিয়ে দিয়ে গেল, তুমি আমায় কত ভালবাসতে। কত ঝড়ঝাপ্টা সামলে এখনো শক্ত পায়ে দাঁড়িয়ে আছি- এ তো তোমারই দান। তুমি আমায় শিখিয়েছ কীভাবে বাঁচতে হয়, টিকে থাকতে হয়, ভালবাসতে হয়।

জানি না মৃত্যুর ওপারে কি আছে, তবে এটা জানি দেখা হবে নিশ্চয়ই! তোমার মতো করে ভাল থেকো ‘আম্মা’।

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com