|

মুক্তির মরীচিকা ধারাবাহিক উপন্যাস: আরিফ আহমেদ (পর্ব ১৬)

প্রকাশিতঃ ৩:৪১ অপরাহ্ন | মে ১৮, ২০১৮

arif ahmed-আরিফ আহমেদ

গুলির আওয়াজে চমকে উঠলো অরোরা। ডাকাতরা নিশ্চয়ই মিতুলকে গুলি করেছে, অজ্ঞান হওয়ার পূর্বে মিতুলকে দেখার চেষ্টা করে ব্যর্থ হলো।  অজ্ঞান হয়ে পড়ে আছে অরোরা। যে নারীর বুকে সুশীল-সভ্য সমাজ গড়তে দৃঢ় প্রত্যয়, সুন্দর স্বপ্ন যার চোখের পাতায়, এই দূর্গমপথ যে তার অতিক্রম করতেই হবে।

কংকর না বিছিয়ে তো পীচঢালা পথ তৈরি করা যায় না। অরোরাকে কাঁধে তুলে নিলো মিতুল। কিছু পথ অতিক্রম করার পর জ্ঞান ফিরলো অরোরার। সে ভাবলো হয়তো ডাকাতরা তাকে নিয়ে যাচ্ছে। যে ডাকাত মিতুলকে মেরেছে কিছুতেই বাঁচতে দিবে না তাকে। গড়িয়ে নেমে গলা চেপে ধরতে গিয়ে দেখলো মিতুলের কাঁধেই সে ছিলো। জলোচ্ছ্বাসের উথলে উঠা পানি যেমন আঁছড়ে পড়ে উপকূলে, তেমনি ঝাঁপিয়ে পড়লো সে মিতুলের বুকে।

মিতুল পিঠে মাথায় হাত বুলিয়ে অভয় দিয়ে বলল, আর ভয় নেই। ওরা চলে গেছে।
বুক থেকে মাথা সরিয়ে দেখলো, মিতুলের হাতে রিভলবার। তাহলে কি তুমি ওদের গুলি করেছিলে?
এ ছাড়া উপায় ছিলো না। তবে শরীরে নয়, হাতে গুলি করেছি।
তোমার কাছে অস্ত্র আছে, আগে দেখিনি তো।
কখনো সাথে রাখি না। টাঙ্গাইল আসব বলেই আনলাম।

ওরা গাড়ী চলার আওয়াজ লক্ষ করে এগিয়ে যাচ্ছে। পায়ের নিচে আর্তনাদ করছে শুকনো ঝরা পাতা। বিচিত্র জীবনে যে পা দেয়নি তার জীবন সুন্দর হতে পারে, সার্থক নয়। যেই হোক মিতুল, যাই হোক সে তাতে অরোরার কি। তার একজন সুযোগ্য সঙ্গীর প্রয়োজন ছিলো তা সে পেয়েছে। ভাবনা কি, হোক অরন্য, হোক গীরিপথ, হোক দূর্গম শৃঙ্গ, সে চলবে অনায়াসে মিতুলের হাত ধরে। নিভৃত জীবনে শত বছর বাঁচার চেয়ে নির্ভীক একদিন বেঁচে থাকাও শ্রেয়। আজ বুঝতে পেরেছে অরোরা, যার হাত ধরে সে প্রকৃতি দেখতে বেরিয়েছে সে প্রকৃতির এক অসাধারণ সন্তান।

মিতুল বলল, দাদুকে এসব কিছু বলো না। ওরা পালিয়ে গেলেও আমরা কে তা খোঁজ নেওয়ার চেষ্টা করবে।
অরোরা বলল, ঠিক আছে, বলবো না।

বাংলোয় ফিরে দেখলো বৃদ্ধ অস্থিরভাবে পায়চারি করছে। ওদের দেখেই বললম, সে কি তোমরা কোথায় গিয়েছিলে?
মিতুল জবাব দিল, হাটতে হাটতে ঐ দিকে চলে গিয়েছিলাম।

বৃদ্ধ বলল, আশেপাশেই কোথাও গুলির আওয়াজ শোনা গেল। তোমরাও দেখলাম এদিকে নেই। কোনো বিপদ হলো কিনা, ভয় পেয়েছিলাম।
আমরা অবশ্য তেমন কিছু শুনিনি। বনটা খুব সুন্দর। চাঁদের আলোতে আরো সুন্দর লাগছে, তাই ঘুরে আসলাম, বলল অরোরা।
সুন্দরের আড়ালে অনেক অসুন্দর লুকিয়ে থাকেরে বোন, বৃদ্ধ যেতে যেতে বলল। ওরা বসলো বারান্দায়।

মিতুল বাইরে শীতল, ভিতরে উত্তেজিত। অনেক বছর পর তীব্র অবরোধে পিষ্ঠ হওয়া ঘুমন্ত সিংহটা জেগে উঠেছে। খুন চেপে গিয়েছিল মাথায়। গুলি করার পর ইচ্ছে হয়েছিল সব ক’টাকে মেরে ফেলে। অনেক কষ্টে পাথরচাপা দিয়েছে ইচ্ছাটাকে। এতো রক্ত লেগে আছে যে হাতে, সে হাত রক্তের ঘ্রাণ পেলে মরিয়া হয়ে তো উঠবেই। তবু জীবনকে ঢেলে সাজাবার প্রত্যয় বুকে অনেক ত্যাগ যে স্বীকার করতেই হবে।

বৃদ্ধ এসে ওদের পাশে বসলো।
অরোরা জিজ্ঞাস করলো, দাদু আপনার বাড়ি এখান থেকে কতদূর?
বৃদ্ধ দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে বলল, কেনো ঘর-বাড়ি নেইরে বোন। বিশ বছর যাবত এখানেই আছি।
দাদী কোথায় থাকেন?
বিয়ে-থা করিনি। আজ নয় কাল বলতে বলতেই সময়টা পেরিয়ে গেলো।

মিতুল হেসে বলল, তাহলে তো আপনি খুব সুখে আছেন। ভাবনাহীন জীবন হেসে-খেলে কেটে যাচ্ছে।
অরোরা প্রতিবাদ করে বলল, তুমি বুঝি বিয়ে করে খুব কষ্টে আছ।
কষ্টে না থাকলেও সুখে আর আছি কতটুকু!
বেশ, এখন থেকে তোমার সাথে আমার আড়ি।

বৃদ্ধ হেসে বলল, বেশ, বেশ হয়েছে। তোমরা সুখে আছ না দুঃখে তা তো আমি দেখতেই পাচ্ছি। আমার নাতনীর মতো এমন লক্ষী মেয়ে জগতে কয়টা আছে। এমন মানিকজোড় কি হয়! তোমরা সত্যি খুব সুখি।
সুখি না ছাই, আমার সাথে শুধু শুধু ঝগড়া করে, বলল অরোরা।

বৃদ্ধ সান্তনা দিয়ে বললেন, এটা ঝগড়া নয়রে নাতনী, ভালোবাসা। যে নদীতে ভাঙ্গা-গড়া নেই, সে নদী এক সময় বিলীন হয়ে যায়। তোমাদের ভালোবাসা কখনো শেষ হবে না। জীবনকে তোমরা জেনেছ শিখেছ, আমাদের মতো নি®প্রভ নও তোমরা। আমরা জনতাম সংসার মানে রান্না-বান্না, খাওয়া-দাওয়া, ছেলে মেয়ে জন্মদান। আর তোমাদের এ সময়ে সংসার হলো জীবনের উপভোগ, চলার গতি, নতুন প্রজন্ম গড়া, নতুন নতুন স্বপ্নের জন্ম দেওয়া। সে সময়ের বধূরা স্বামীকে ভাবত দেবতা। যে কারণে বিছানায় যাওয়া ছাড়া আর কোন সম্পর্ক তাদের থাকতো না। দুই জগতের বাসিন্দাদের এক জীবনে বাস করা খুব জটিল। তবু মুখ ফুটে কেউ কিছু বলতো না, কেবল বয়ে যেতো সময়। এ যুগের তোমরা স্বামী-স্ত্রী হলে বন্ধু। এক সাথে হাস, এক সাথে কাঁদ, ঝগড়া করে আবার নিজেকে ভাসিয়ে দাও সুখ সাগরে, তাইতো তোমাদের পৃথিবীটা এতো সুন্দর।

অরোরা আড়ালে মিতুলের পায়ে নখ দিয়ে চিমটি কাটল।
বৃদ্ধ চাঁদটার দিকে তাকিয়ে থেকে বলল, অনেক রাত হয়েছে শুয়ে পড় তোমরা, আমিও যাই।

রুমে প্রবেশ করে মিতুল দরজা বন্ধ করলো।
যে বীর বিশ্বজয় করে সেও স্ত্রীর কাছে একজন পুরুষ বৈ-কিছু নয়। তবু তাদের একটা স্বীকৃতি থাকে, অধিকার থাকে, অনায়াসে পাশে বসতে পারে। যে দু’টি প্রাণী এখন রূদ্ধ দ্বারের ভিতর, ওদের পরিচয় কি অধিকারই বা কি? মিতুল নিরব হয়ে দাঁড়িয়ে রইল কয়েক মুহূর্ত। অরোরা খাটে বসে আছে। সেও পারলো না মিতুলের দিকে তাকাতে। কয়েক মুহূর্ত আগেও যা ছিল সহজ, এখন তা কঠিন থেকে কঠিনতর। একটি জায়গায় দু’জনেই ভাবছে অথচ সযতেœ লুকিয়ে রাখছে প্রাণপনে। কাঁচের ঘরে দেহ লুকানোর মতো। সোফায় বসল মিতুল। আবার নিরবতা। যেন থেমে আছে পৃথিবী। অরোরার মনে ঘুরপাক খাচ্ছে অনেক কিছু। মিতুলের বুকে অসীম দীর্ঘশ্বাস। সবই অন্তরালে।

অরোরার খুব ইচ্ছে জাগছে মিতুলের গলা জড়িয়ে রাতভর তার অতীত জীবনের গল্প শুনতে। এ রাতটা কি কেবল তাদের হতে পারে না। সমুদ্রের জল বয়ে আনে নদী, তবু সমুদ্রের কাছে সে কত অসহায়। মিতুলের উপর তার একচ্ছত্র অধিকার, কতৃত্ব।

অথচ এইটুকু চাইতে কত দ্বিধা মনে। যদি তাকে নোংরা ভাবে মিতুল। নষ্ঠা ভাবে কিংবা দুশ্চরিত্রা ভাবে অথবা রেগে যায় সেই প্রথম দিনের মতো। সে চায় না তার অতীত জীবন পরিচয় অরোরা জানুক, কেন সে বারবার জানতে চাইবে ? মিতুল কি পারে না তাকে আজ সব বলতে।

মিতুল তাকালো অরোরার দিকে। সে মাথা নিচু করে বসে আছে। বর্ষায় ভরা নদীর বাঁধ ভাঙ্গা ঢেউ, শোভিত কাননের শীরে শ্রেষ্ঠ ফুল, পেখম মেলা ময়ূরীর গুচ্ছ সর্বাঙ্গ জুড়ে, যে বনোফুলের মৌ মৌ ঘ্রাণে ছুটে আসে সর্পরাজ। সেই দূর্লভ মাল্য আজ তার ঘর আলোকিত করে বসে আছে পদ্মাসনে। শুধু অদৃশ্য একটা কাঁচের দেওয়াল দুইয়ের মাঝে। সেই গানটা মনে পড়লো ভেঙ্গে মোর ঘরের চাবি নিয়ে যাবে কে আমারে। কেউ নিবে না। নিজেও যাবে না। এ রাত কি শেষ হবে? মিতুলের খুব ইচ্ছে হলো মাথায় হাত বুলাতে বুলাতে রাত ভর অরোরাকে গল্প শুনাতে। সকল প্রাচীর ভেঙ্গে এ রাতটা কেবল হয়ে থাক দু’জনের। ভাবলেই কি সব হয়? অরোরা তাকে বিশ্বাস করে। তেমন কিছু ঘটলে যদি তাকে ছদ্মবেশী লম্পট ভাবে। সুযোগসন্ধানী ভাবে। এতোটা বিশ্বাস করে যে আবদ্ধ ঘরে প্রবেশ করতে দ্বিধা করেনি। তার সাথে এ আচরণ কি বিশ্বাসঘাতকতা নয়? আমি কি ক্ষণিক স্বার্থের জন্য হীন মনোবৃত্তিকে প্রশ্রয় দিয়ে সমস্ত সাধনাকে ধুলিস্যাৎ করে দেব? একজন অসহায় মায়ের দ্বীপ্ত বিশ্বাসকে অন্ধকারে ছুঁড়ে দেব। রক্ষক হয়ে কি ভক্ষক সাজবো?

মিতুল উঠে দাঁড়িয়ে নিরবতা ভাঙ্গলো। ব্যাগের চেইনটা খুলতে খুলতে বললো, তুমি শোয়ে পড়ো অরোরা। ব্যাগ থেকে বই হাতে নিয়ে, আমি এ বইটা পড়বো, তুমি ঘুমাও। হালকা আঘাতে যেমন ভেঙ্গে যায় সরু কাঁচের দেয়াল, তপ্ত কড়াই অল্প জল নিমিষেই যেমন শুষে নেয় তেমনি উবে গেলো সকল অন্তর্দ্বিধাদ্বন্ধ। বর্ষার জলে যেন নদী পেলো তার স্রোত। অরোরা উঠে হাত থেকে বই কেড়ে নিয়ে বললো, আমি ঘুমাব আর তুমি বই পড়বে তা হবে না। ঘুমালে দু’জনেই ঘুমাব। নয়তো সারারাত বসে গল্প করবো।

মিতুল বললো, বই পড়ে রাত কাটানো আমার জন্য কোন সমস্যা নয়।
অরোরা কিছুটা ক্ষেপে বললো, তুমি মহাপুরুষ আর আমি বুঝি হামনারী!
মিতুল হেসে ফেললো। হামনারী মানে?
মহার বিপরীত। বলল অরোরা।

অট্ট হাসিতে ফেটে পড়লো মিতুল। তুমি দেখছি রাগের মাথায়ও দারুণ সুন্দর কথা বলতে পারো। আচ্ছা বলো এখন আমাকে কি করতে হবে?
সারারাত তুমি গল্প বলবে, আমি শোনবো।
বেশ তাহলে চল বসে বসে গল্প করি।
উঁহু বসে নয়, শুয়ে শুয়ে।
তাহলে তো ঘুমিয়ে যাবে।
ঘুমাতে না দিলেই হয়।
চোখগুলো তো আমার কাছে থাকবে না।

অপরাধ বার্তার ধারাবাহিক আয়োজন মুক্তির মরীচিকা প্রতি সাপ্তাহে একটি করে পর্ব প্রকাশ করা হবে। চলবে…

দেখা হয়েছে: 109
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ [email protected]
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।