|

মুক্তির মরীচিকা ধারাবাহিক উপন্যাস: আরিফ আহমেদ (পর্ব ১০)

প্রকাশিতঃ ৩:২৭ অপরাহ্ন | মার্চ ২৩, ২০১৮

আরিফ আহমেদ

জীবনের কত রাত হারিয়ে গেছে স্মৃতির গর্ভে। কত প্রহর অনায়সে চলে এসেছে চোখ বুজার পর। কত ভোরের আলো পরশ ভুলাতে এসে বন্ধ জানালার নিষ্ঠুর অবরোধে ফিরে গেছে হতাশায়। কত প্রভাতে শিউলি ফুল মালির প্রতীক্ষায় ঝরে গেছে নির্জনে। হতভাগা ঘুম এতোই ভালোবাসতো অরোরাকে।

কিন্তু আজ একি হলো, ঘুমের দেবী কি ধরণীকে ঘুমপাড়াতে এসে তাকে বাকি রেখেই ফিরে গেছে স্বর্গে! দেবী আজ এদিকে আসেনি, বেমালুম ভুলে গেছে অরোরার কথা ? নাকি স্বর্গে নয় দেবী বাস করে মানুষের অন্তরে, ভাবনায়। ঘুম এবং বিছানা, বিছানা আর অরোরা কতোদিনের বন্ধুত্ব তাদের, অষ্টপ্রহরের প্রতিমুহূর্তে কতো আপন তারা।

অথচ ঘুম আজ তাকে ত্যাগ করেছে, বিছানা তাকে ঠেলে দিচ্ছে জানালার পাশে। মিতুলের সান্নিধ্য পাওয়ার আশায় উত্তাল হয়ে উঠছে মন। যেন দীর্ঘ হয়েছে রাত, প্রভাত সরে গেছে দূরে। নিকষ অন্ধকারে পথহারা পথিকের মতো ধ্র“ব তারার অদৃশ্য বাহু ধরে বসে রইলো ভোরের আলো ফোটার প্রতীক্ষায়।

আমরা এবার মিতুলের ভেজানো দরজায় উঁকি দিয়ে দেখি। যাকে একপলক দেখার আশায় রাতের পর রাত ছাদে বসে কাটিয়েছে চটপট করে। যার বন্দিত্বের বাঁধন চিহ্ন করার জন্য অস্থির হয়ে উঠেছিল, আজ সে রাত পেরুলেই হবে সহযাত্রি। কীভাবে কাটছে তার এই আঁধারি সমুদ্র?

সন্ধার পর পড়তে বসলো মিতুল। কিছুদিন ভার্সিটিতে যেতে পারবে না, সুতরাং ক্লাসের ঘাটতিটা পড়ায় পুষিয়ে নিতে হবে। বইপত্রগুলো এলোমেলো ঘঁ^াটাঘাঁটি করলো অনেকক্ষণ। কোনটাতেই মন বসছে না। সবগুলি যেন কেমন নিরসগদ্য। পাতা উল্টাচ্ছে, খুঁজচ্ছে, মুখ গুঁজে ডুবে থাকার চেষ্টা করছে। হায়রে অবুঝ মন! বইয়ে তো আর অরোরার কথা লেখা নেই যে ভালো লাগবে। মনের অজান্তে তাই অন্য কিছু খুঁজছে সে। দুর্বোধ্য এক অনুভূতি হৃদয়টাকে ফালাফালা করে জোড়া দিচ্ছে বারবার।

একটু অস্থিরতা, একটু চঞ্চলতা ছুঁয়ে ছুঁয়ে যাচ্ছে মন। নারীর সহচর্য তার নতুন নয়, তবু এ যেন কোনো অতিমানবী। হারিয়ে ফেলার ব্যাকুলতা গ্রাস করছে তাকে। কল্পনার রংগুলো কেবলি হামলে পড়ছে বুকের মাঝ দরিয়ায়। এখনও রাত হয়নি প্রভাত সেতো বহু দূর। তবু দেওয়াল ঘড়িটায় চোখ ছুটে যায় ক্ষণে ক্ষণে। ছাদে হাঁটলে ভালো লাগতো। পূর্বে কখনো যা হয়নি, আজ হলো।

অজানা এক আড়ষ্টতা গ্রাস করলো মন। যদি অরোরা বুঝতে পারে আগামীকালের সকালটার জন্য অস্থির হয়ে উঠেছে মিতুল! কি যে ছেলেমানুষী হবে তখন। এমন তো হতে পারে, অরোরা তার মত পাল্টেছে। মিতুল তাদের আপনার কেউ নয়, পরিচয়হীন এক আশ্রিত। তার সাথে যাওয়া যুক্তিসঙ্গত নয়। মা হয়তো নানা যুক্তি-উদাহরণ দিয়ে বুঝিয়েছেন। এমনও তো হতে পারে আজ যা বলেছে কাল তা মনে নেই। সকালে হয়তো মিতুল তৈরি হয়ে আছে। অরোরা অই দিকে ঘুমাচ্ছে বা শরীর খারাপ হওয়ায় শুয়ে আছে অথবা মাথা ধরেছে। নবযৌবনের মেয়েমানুষ কতই আর সিরিয়াস! মনে যখন রং লাগে তখন নাচবে, ভাল না লাগলে গাল ফুলিয়ে বসে থাকবে, এই তো।

মিতুল কিছুক্ষণ অস্থিরভাবে পায়চারি করার পর ছাদে উঠার সিড়িতে গিয়ে বসলো। উপরে উঠতে ইচ্ছে হচ্ছে না।
ইস, যদি ছেলেটা জানতো অই পাশে ব্যাকুল একটা মনের অস্থির দু’টো চোখ ছিটকে জানালার বাইরে পরে আছে এ ছাদে একটা চেনা মুখ দেখার আশায়! মানুষের মনের সন্ধান কেন পায় না মানুষ। হাত বাড়ালেই যেখানে স্পর্শ করা যায়, সেখানে কেন এতো গভীরতা? বুকের মাঝে মন অথচ বুক পাওয়া যায় সহজে, মন কতো দূর্গম!

রাজাকার আলমাছ তার মেয়ের বুক ঢেকেছে কালো পর্দায়, চোখ ঢেকেছে কালো চশমায়, হাত-পা ঢেকেছে সাদা মোজায় কিন্তু মনটাকে ঢাকতে পারেনি। সে যেমন ছিলো কিশোরী বয়সে, তেমনি আছে, ঘুরছে পৃথিবীর অলিগলি।
মিতুল সে পথের যাত্রী হতে ঝিনুক যেমন ভিতরের নরম মাংসটাকে বাইরের শক্ত খোলস দিয়ে ঢেকে রাখে মুক্তো জমানোর আশায়, তেমনি অপেক্ষায় রইলো।

অরোরা সাতটার পূর্বেই তৈরী হয়ে এসে মিতুলকে ডাকল। সে ঘুম জড়ানো চোখে দরজা খুলে দেখল মনের মানুষটা রেডি।
দিলে তো সাতসকালের সুন্দর স্বপ্নটা নষ্ট করে, বলল মিতুল।

ভালোই তো, আমি নির্ঘুম চোখে রাত কাটিয়ে সকাল সকাল তৈরি হয়েছি আর আপনি নাক ডেকে ঘুমিয়ে সুখের স্বপ্ন দেখছেন।
স্বপ্নের জন্যই জীবন, স্বপ্ন না দেখলে বাঁচব কি নিয়ে?
থাক সকাল বেলায় আর কাব্য শোনাতে হবে না। দয়া করে এবার রেডি হন।
তুমি অপেক্ষা কর, আমি দুই মিনিটে তৈরি হয়ে নিচ্ছি।
বেশ হয়েছে। এত ব্যস্ত হতে হবে না, ৩০ মিনিট সময় দিলাম, এর মধ্যে নাস্তার টেবিলে হাজির থাকবেন।

গাড়ী চলছে মৌলভীবাজার অভিমুখে। নিপুন হাতে ড্রাইভ করছে মিতুল। অরোরা যতই দেখছে ততই অবাক হচ্ছে। গাড়ি রাস্তায় ওঠার সাথে সাথে যেন পাল্টে গেলো মিতুল। খাঁচায় আবদ্ধ পাখি হঠাৎ ছাড়া পেলে অথবা ডাঙ্গায় উঠা মাছ হঠাৎ জলের স্পর্শ পেলে যেমন চঞ্চল হয়ে ওঠে, তেমনি। অক্টোবরের শেষ। তাই হালকা কুয়াশাও ভাসছে সাদা মেঘের মতো। কুয়াশার বুক ছিঁড়ে গাড়ি এগিয়ে চলছে সামনে। অরোরা ভাবছে মিতুল আসলে কে? কেন সে তার পরিচয় দেয় না। কোনদিন ভুলক্রমেও তার বাবা-মা আত্মীয়স্বজন সম্পর্কে কিছু বলে না। জানতে চাইলে এড়িয়ে যায়। হয়তো খুব সাধারণ, নয়তো অতিঅসাধারণ পরিবারের ছেলে সে। নিজেকে আড়াল করে রাখার পিছনে নিশ্চয়ই কোন কারণ আছে।

অরোরাকে নিরব দেখে মিতুল বলল, কি হলো, যেভাবে মুখ আমসি করে বসে আছো মনে হচ্ছে তোমাকে বির্সজন দিতে নিয়ে যাচ্ছি।

অপরাধ বার্তার ধারাবাহিক আয়োজন মুক্তির মরীচিকা প্রতি সাপ্তাহে একটি করে পর্ব প্রকাশ করা হবে। চলবে…

দেখা হয়েছে: 87
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।