|

মুক্তির মরীচিকা ধারাবাহিক উপন্যাস: আরিফ আহমেদ (পর্ব ১১)

প্রকাশিতঃ ৮:২৯ অপরাহ্ন | মার্চ ৩০, ২০১৮

আরিফ আহমেদ

বিসর্জন দিবেন কিনা জানি না তবে সত্যি সত্যি আমি জলে ডুবে গেছি।
ওরে বাবা, গাড়ীতে বসে থেকে ডুবে যাওয়ার স্বপ্ন দেখছো, ভালোই তো।
আমি কিন্তু স্বপ্নে নয় বাস্তবেই ডুবে গেছি।
তা হঠাৎ জলপ্রীতির কারণ?

কারণ আপনি নিজে। আপনার সাথে চলছি কথা বলছি, আনন্দ করছি অথচ আপনার সম্পর্কে কিছুই জানা হলো না।
মিতুলের চোয়াল শক্ত হয়ে গম্ভীর হয়ে গেলো। চুপচাপ বেশ কিছুক্ষণ, তারপর সহজভাবে বলল- দেখ অরোরা প্রশ্নটা পূর্বেও আমাকে করেছ যা বলার বলেছি এখন আবার বলছি, আমি আমিই। পরিচয় নিয়ে কখনো আমি চিন্তিত নই। যখন যেখানে থাকি সেটাই আমার ঠিকানা। এর বাইরে কখনো ভাবতে চাই না।

আমি আসলে বুঝতে পারি না এরকম একটা গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন শুনে আপনি রেগে যান কেন? একজন পুরুষের সাথে চলতে গেলে তার পরিচয়টা জানতে হয়।
মিতুল গাড়ির ব্রেক থামালো।
অরোরা অবাক হয়ে জানতে চাইল, থামলেন কেন?
যেন কিছুই শুনেনি। তার মতো করেই সে বলল- আমাকে যদি অবিশ্বাস হয় তাহলে আর সামনে যাওয়ার প্রয়োজন নেই। এখান থেকে বাড়ি ফিরে যাই।

অরোরা হেসে বলল, আচ্ছা ঠিক আছে বাবা, সরি বললাম। আর কেনোদিন জানতে চাইব না। এবার চলুন।
তারপর থেকে অরোরা চুপ।
মিতুল বলল, এভাবে মুখ গোমরা করে বসে থাকা চলবে না। ঝগড়া করেছি বলে কথাবার্তা বন্ধ, তা হবে না। অরোরা হেসে ফেলল।
আমরা গন্তব্যে চলে এসেছি। তুমি জায়গা পছন্দ কর। বলল মিতুল।
বেশ উচু একটি পাহাড়ের পাদদেশে তারা থামল। প্রকৃতি যতœ করে গালিছা বিছিয়ে রেখেছে এ পাহাড়ের বুকে। অরোরা গাড়ী থেকে নেমে চোখের কালো গ্লাসটা খুলে বলল, অপূর্ব! এরকম একটা স্বপ্নের পাহাড় আমার চোখে প্রায়ই ভাসতো। ধন্যবাদ আপনাকে আমাকে স্বপ্নের কাছে নিয়ে আসার জন্য। চলুন এবার পাহাড়ের চূড়ায় উঠি।
মিতুল তার পায়ের দিকে তাকিয়ে বলল, এই হিল জুতা নিয়ে পাহাড়ে চড়বে?
তাহলে কি কেডস পড়ব?
হলে ভাল হতো।

বেশতো পড়ে নিচ্ছি। সে গাড়ীর পিছন থেকে বড় একটা ব্যাগ বের করলো। মিতুল জানতে চাইল, ব্যাগে করে কি জুতা নিয়ে এসেছো?
শুধু জুতা নয় এক মাস থাকতে হলে যা যা দরকার শুকনো খাবারসহ সব নিয়ে এসেছি।
বাহ দারুনতো। তুমি দেখছি আমার দাদির মতো। এক ঘন্টার জন্য কোথাও গেলে ব্যাগে ভরে সব নিয়ে যেতেন।
এটাই নিয়ম কখন কি প্রয়োজন হয় কে জানে। বিশেষ করে মেয়েদের অনেক জিনিসের প্রয়োজন হয়। এখন সাথে কেডস না আনলে পাহাড়ে চড়ার আনন্দটা মাটি হয়ে যেতো। পাহাড়ের খাড়া পথ বেয়ে উঠছে তারা। কিছুটা উঠার পর অরোরা দাঁড়িয়ে গেলো। প্রথমে যত সহজ মনে হয়েছিল ততটা নয়, ভারসাম্য রাখতে পারছে না এবং ক্লান্তি লাগছে।
মিতুল হাত বাড়িয়ে দিল। এবার অনায়াসে উঠতে লাগলো। অরোরা শিখরে আরোহণ করে চারদিকে তাকাল, সবুজ আর সবুজের সমারোহ। যেন সবুজ সমুদ্র চূড়ায় আছে সে। ক্যামেরায় বন্দি হচ্ছে সব সুন্দর মুহুর্তগুলো।

মিতুল গভীর দৃষ্টিতে দেখছে অরোরাকে। মৃগশিশুর মতোই চঞ্চল এখন মেয়েটি। যেন খাঁচার খোরগোশকে বনে ছাড়া হয়েছে। ভাবতেই কষ্ট হয়। দুরন্ত এই বালিকাটিকে আবদ্ধ রাখা হয় চার দেয়ালের আবেষ্টনিতে। একজন মানুষ যে নিজেকে বিকাশ করতে চায় অথচ সমাজের অন্য একজন মানুষের কারণে সে বিকশিত হতে পারছে না। হোক না সে বাবা কিংবা যে কেহ, একজন মানুষ আরেকজন মানুষকে আটকে রাখার কোনো অধিকার নেই। তার ডানা আছে অথচ তাকে উড়তে দেয়া হয় না। তার মেধা আছে অথচ তাকে ভাবতে দেয়া হয় না। তার চোখ আছে অথচ তার দেখা নিষেধ। তার পা আছে অথচ তাকে হাঁটতে দেয়া হয় না। নারী ও পুরুষ দুইয়ে মিলে একজন পূর্ণাঙ্গ মানুষ। অথচ পেশী শক্তিধারী পুরুষ হয়ে গেলো ভোক্তা আর লাবন্যময়ী প্রেয়সী আখ্যা নিয়ে নারী হলো ভোগ্যপণ্য। একজন মানুষ আরেকজন মানুষকে পর্দার দোহাই দিয়ে গৃহবন্দি করে রাখছে। যত অপকর্মই করুক তবু সমাজের চোখে পুরুষ সর্বদা পবিত্র। এতে তাদের সততা নষ্ট হয় না, তারা ধোয়া তুলসী পাতা। এই অমানবিক দৃশ্য আর কতদিন দেখতে হবে? প্রতিকার কি নেই?

প্রকৃতি আস্তে আস্তে ক্ষেপে যাচ্ছে। গরমে ঘামছে ওরা।
মিতুল বলল, চলো এবার নিচে নেমে যাই। চার পাশটা দু’চোখ ভরে আবার দেখে নিচে নামতে লাগল ওরা। উচু পাহাড় থেকে নিচে নামাটাও কষ্টকর। মনে হয় সামনে উল্টে যাচ্ছি। সমতলে পা দিয়েই খিদে অনুভব করলো। মিতুলের সন্ধানী চোখ আশপাশে তাকাচ্ছে- কোন দোকান-পাট দেখা যায় কিনা, এই আশায়।

বুঝতে পেরে অরোরা বলল, দাঁড়ান ব্যবস্থা করছি। গাড়ির পিছনের ডাকনা খুলে ব্যাগ থেকে টেনে হট টিফিন ক্যারিয়ার বের করল সে। রুটি আর গরুর মাংস।
মিতুল বলল, বাহ্ এতো দেখছি শাহী আয়োজন। এতোকিছু কখন করলে?
অরোরা প্লে¬টে সাজাতে সাজাতে বলল, আম্মু সেই ভোর রাতে জেগে উঠেছেন। তারপর নিজ হাতে এগুলো রান্না করে দিলেন। রুটির সাথে এক টুকরা মাংস মুখে পুরে চিবুতে চিবুতে বলল, ভালোই হলো অনায়াসে সন্ধ্যা পর্যন্ত ঘুরা যাবে। ঐদিকে একটা ঝর্ণা আছে চলো সেটা দেখে যাই।

অরোরা খাওয়া রেখে লাফিয়ে ওঠে বলল- এখানে ঝর্ণা আছে! আমি কোনদিন ঝর্ণা দেখিনি। চলুন না, এখনি যাই।
তা না হয় গেলাম। কিন্তু এই খাবারগুলো অক্ষত রেখে গাড়ি চালালে নির্ঘাত একসিডেন্ট করবো। মিতুল ভাবছে জীবনে কত দর্শনীয় স্থানে গেলাম এ পথগুলি আমার পূর্বচেনা, এতো ভালোতো কখনো লাগেনি। সত্যিই কি সব সুন্দর হয়েছে নাকি অরোরা পাশে থাকায় সুন্দর লাগছে। পাহাড়ের ঢালু পথে নামতেই দেখা গেলো ঝর্ণা। ঝর্ণা দেখে অরোরা আনন্দে লাফিয়ে উঠতে গিয়ে গাড়ীর ছাদে মাথায় আঘাত পেল। অবশ্য সে দিকে তার ভ্রুক্ষেপ নেই, সে বলতে লাগল ওহ্ কী দারুণ! যেমন ছবিতে দেখতাম ঠিক সে রকম। মিতুলের বলতে ইচ্ছা হলো, ছবিতো স্বর্গ থেকে আসে না প্রকৃতি থেকে নেয়া হয়। কিন্তু আনন্দের বহিঃপ্রকাশ যুক্তির ঊর্ধ্বে। আবেগ ভালোবাসায় যুক্তি চলে না। প্রেমিক তার প্রেমিকার হাত ছুঁয়ে যে আনন্দটুকু পায় কোন রাজা রাজ্য জয় করেও তা পায় না। প্রেয়সীর একটু মুখের হাসি যেটুকু সুখ দেয় সেখানে কথিত স্বর্গ নেহাত তুচ্ছ বৈ-কিছু নয়। অরোরার পৃথিবীটা এখন কেবলি স্বপ্ন দেখার, প্রকৃতির স্পন্দন দেখে অবাক হওয়ার। তাকে স্বপ্ন-লোকে ভাসতে দেওয়াই উচিত। চুপ রইল সে। গাড়ী থেকে নেমে ঝর্ণার পাশে এসে দাঁড়াল। বিশাল বিশাল পাথরের উপর গড়িয়ে পড়ছে পানি। জলপ্রপাতের কলকল ছন্দে গা ডুবিয়ে কার না নাচতে ইচ্ছে করে। ঝর্ণা দেখতে আসা অনেকেই জলে সাতার কাঁটছে। অরোরা আব্দার করলো, চলুন না আমরাও জলে সাঁতার কাটি। কত বছর হয়ে গেলো সাঁতার কাটা হয় না।

মিতুল বলল, কী বলছ! তাই বলে এখানে নামতে হবে। তা ছাড়া পানি ভীষন ঠান্ডা, সমস্যা হতে পারে।
অনেকেই নেমেছে। বলল অরোরা।
মিতুল সেদিকে ভালো করে তাকাল। যারা পানিতে লাফাচ্ছে বেশির ভাগই তরুণ-তরুণী। যুগল প্রেমিক-প্রেমিকা। একে অপরকে জড়িয়ে ধরে পানিতে ভাসছে। এক সাথে নামলে যে অরোরা তাকে ধরে সাঁতার কাটতে চাইবে না, তার নিশ্চয়তা কি?
সে বলল, বাদ দাও। সাথে কাপড়চোপড় নেই, সমস্যা হবে।

অরোরা বিপুল উৎসাহে বলল, নিয়ে এসেছি তো। আপনিও পরতে পারবেন।
ভারী অদ্ভুত মেয়ে তো তুমি। যেভাবে প্রস্তুতি নিয়ে বের হয়েছো মনে হচ্ছে পালিয়ে এসেছি আর ফিরব না।
অরোরা হাসতে হাসতে বলল, অনেকটা সে রকমই। বলা তো যায় না যদি ফিরতে না পারি তখন এগুলি ঠিকই কাজে লাগবে।
বেশ যখন লাগবে তখন দেখা যাবে। আমি এ মুহূর্তে পানিতে নামছি না এটাই শেষ কথা। তোমার ইচ্ছে হলে নামতে পার।
আপনি একটা বেরসিক আদম। আমি একাই নামব।

সে গাড়িতে উঠে পোশাক পাল্টে এল। মিতুলের চোখ এবার চড়কগাছ। অরোরার পরনে টাইস আর হাফ গেঞ্জি। ধর্মীয় সংস্কৃতিতে দীর্ঘদিন আবদ্ধ থাকার পরও একটা মেয়ে কিভাবে এতোটা খোলামেলা ও আধুনিক হতে পারে, তা তার অবোধ্য। এই মেয়ে জগতের সকল সংস্কৃতিতে মানানসই। একান্ত সাধনায় তিলতিল করে সে নিজেকে গড়ে তুলেছে। দূর্গম পাহাড়েও চড়তে পারে, সমতলেও বিচরণ করে, আবার পানিতেও ভাসতে পারে। সাবাশ নারী, সাবাশ! তোমার চলার দূর্লভ স্বাধীনতা তুমিই ছিনিয়ে আনবে। তোমার অধিকার আদায় করবে তুমি। এ পৃথিবী গভীর প্রতীক্ষায় প্রহর গুনছে তোমার গর্ভের অনাগত ভ্রুণের দিকে তাকিয়ে। বন্দিত্ব তোমাকে অন্ধ করতে পারবে না, দেয়াল তোমাকে আটকাতে পারবে না। ভণ্ডের গান তোমাকে পথ ভুলাতে পারবে না। তোমার সাধনার বি¯েফারণ একদিন ঘটবেই ঘটবে। পাকা সাঁতারুর মতো অরোরা সাঁতার কাটছে।

দুধে আলতায় মিশানো শরীরটাকে লিকলিকে সাপের মত দুলাচ্ছে অনায়াসে। পানকৌড়ির মত ডুবছে-ভাসছে। জলচর প্রাণী যেমন জলের স্পর্শে সজীব হয়ে ওঠে, তেমনি। এবার তার মনে হলো অরোরার এ আনন্দে যোগ না দেওয়াটা অন্যায় হয়েছে। ওর যেখানে তৃপ্তি ইচ্ছে না হলেও সেখানে নিজেকে সমর্পণ করা উচিত তার। অরোরার স্বাধীনতার যুদ্ধে প্রতিবন্ধক না হয়ে সহযোদ্ধা হওয়াই তার করনীয়। কে কী ভাবল, কার চোখে কেমন লাগল, এসব ভাবার অবকাশ নেই বরং তার সামনে সৃষ্ট বাধাগুলিকে ভেঙ্গে চুরমার করে দিয়ে পথকে প্রশস্ত করাই তার কর্তব্য। মিতুল অরোরার জলক্রীড়া ক্যামেরায় বন্দি করতে লাগল একের পর এক। দীর্ঘ সময় সাঁতার কেটে ওঠে এলো অরোরা। শীতে কাঁপছে। জলে ভেজা পোশাকগুলো জোঁকের মতো টেনে তুলছে শরীর থেকে। সে কাঁপতে কাঁপতে মিতুলের সামনে দাঁড়িয়ে বলল, এখন কাপড় পাল্টাব কোথায়?

মিতুল দুষ্টুমী করে বলল, তোমাকে এভাবেই দারুণ লাগছে, পাল্টনোর দরকার নেই।
দুষ্টামী রেখে আগে বুদ্ধি দেন কি করতে পারি।
বুদ্ধি দিচ্ছি, তবে তার আগে কয়টা ছবি তুলে নেই।
আমি শীতে মরছি আর আপনি খুব মজা পাচ্ছেন?
বেশ আর মজা করবো না। গাড়ীর ভিতরে পাল্টে পেল। এছাড়া আর ভালো বুদ্ধি নেই।
অরোরা গাড়ীতে উঠে বলল, আপনি এখানে দাঁড়িয়ে আছেন কেন? দূরে যান।
সে অবাক হওয়ার ভান করে বলল, সে কি আমিতো পর কেউ নই, থাকলে দোষ কী?

জ্বি না মিষ্টার। আপন পর বলতে কোন কথা নেই। দূরে যান।
ঠিক আছে গেলাম। অন্য কেউ চলে এলে কিন্তু শেষে আমাকে দোষ দিয়ো না।
আচ্ছা বেশ, দূরে যেতে হবে না। তবে অন্য দিকে ফিরে থাকুন।
অরোরার পোশাক পাল্টানো শেষ হলে মিতুল বলল, ম্যাডাম আপনার যে কাজ শেষ তা কিন্তু আমি দেখতে পাচ্ছি না।
চুরি করার ইচ্ছা থাকলে পাহারা দিয়ে কি আর রাখা যায়?
সুযোগ পেলেতো চোর চুরি করবেই। সাজার ভয়ে কেউ চুরি ছেড়ে দেয় না।
অরোরা গাড়ী থেকে নেমে বলল, চলুন কিছুক্ষণ হেঁটে এলাকাটা দেখি।

ওরা পাহাড়ি পথে হাঁটছে। অরোরার পরনে ট্রাউজার ও টি-শার্ট। মিতুলের মাথায় হিসাবের গড়মিল। জীবনের হিসাব যেন মিলছে না। চার দেয়ালে আবদ্ধ থাকা মেয়েটি প্রকৃতির সাথে এমন নিবিড়ভাবে কেমনে মিশে গেলো। তার চোখের সামনেই যেন একটা মরা বৃক্ষে হঠাৎ সজীব পাতা ও শাখা প্রশাখা গজাল অথচ সে কিছু বুঝতে পারল না। সেই প্রাচীন প্রবাদটাই জীবন্ত হয়ে তার সামনে উদিত হলো, নারীকে যে পাত্রে রাখা যায় সে পাত্রের আকার ধারণ করে। ঠিক পানির মতো। তাকে সুযোগ দিতে হয় বিকাশের।

মিতুল হাঁটতে হাঁটতে জানতে চাইল, তুমি বই পড়?
হ্যাঁ, অবসর সময়টা বই পড়ে আর গান শুনেই কাটাই।
কার কার বই পড়ো বেশি?

জাফর ইকবালের সাইন্স ফিকশন দিয়ে বইপড়া শুরু, তারপর হুমায়ুন আহমেদ, শরৎচন্দ্র, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, কাজী নজরুল ইসলাম আর এখন তসলিমা নাসরিন। আমি মূলত ছোটবেলা থেকেই সমাজ ও বাস্তবতার বাইরে। পারিবারিক অব¯হানের কারণেই তা হয়েছে। শরৎচন্দ্র আমাকে পরিচয় করিয়েছেন সমাজের সাথে আর তসলিমা নাসরিন বৈষম্য ও বাস্তবতার সাথে। তবে তার সব চিন্তার সাথে যে আমি একমত তা নয়। তার বই পড়েই নিজেকে পাল্টাতে শুরু করেছি আমি। তা ছাড়া সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়, সমরেশ মজুমদার, বুদ্ধদেব, তারাশংকরসহ আরো অনেক লেখকের বই আমার সংগ্রহে আছে।
তসলিমার বই তো বেশির ভাগ এদেশে নিষিদ্ধ, সংগ্রহ কর কিভাবে?

কলেজের পাশে পরিচিত এক লাইব্রেরি আছে, তারাই আমাকে সব ধরনের বই এনে দেয়।
মিতুল মনে মনে বলল, এ দেশের ঘরে ঘরে প্রয়োজন একটা করে তসলিমা নাসরিন। যারা সংগ্রামী, সত্যবাদী ও নির্ভীক। যারা চায় পৃথিবীকে নতুন করে ভেঙ্গেচুড়ে গড়তে। কথিত বর্ণচোরা সুশীলদের মুখোশ যে কিনা একটানে খুলে ফেলতে পারে। কুসংস্কারে জর্জরিত এ জাতির জন্য তসলিমার মতো নারীই এখন প্রয়োজন। ওদের সাহসী হাত ধরেই অরোরার মতো নারীরা তৈরি করবে আগামী পথ, আগামী পৃথিবী।

অপরাধ বার্তার ধারাবাহিক আয়োজন মুক্তির মরীচিকা প্রতি সাপ্তাহে একটি করে পর্ব প্রকাশ করা হবে। চলবে…

দেখা হয়েছে: 81
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ [email protected]
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।