|

মুক্তির মরীচিকা ধারাবাহিক উপন্যাস: আরিফ আহমেদ (পর্ব ১২)

প্রকাশিতঃ ১২:৪৬ পূর্বাহ্ন | এপ্রিল ০৬, ২০১৮

আরিফ আহমেদ-Arif Ahmed

মিতুল প্রায় প্রতিদিন অরোরাকে নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে। সকালে বের হয় সন্ধ্যায় ফিরে আসে। অরোরা হয়েছে আরো চঞ্চল, আরো প্রাণবন্ত। দুটি প্রাণ যেন একই বৃত্তে বাঁধা পড়েছে। জীবনের নাম যেনো হাসি আনন্দ আর সুখ। স্বপ্ন দেখা নয়, স্বপ্নের রাজ্যে বিচরণ করাই তাদের কাজ।

সারাক্ষণ পাশাপাশি থাকা, টুকিটাকি ঝগড়া করা, আবার পরবর্তীতে কোথায় কোথায় যাবে তা নিয়ে প্ল¬্যান করা। বয়ে যাচ্ছে সময়, কাটছে প্রহর। বুকের গভীরে ভীষণ এক অস্থিরতা, মাদকতার নেশায় স্বপ্নবিলাশী মন ছটফট করতে থাকে সারাক্ষণ। প্রতিটা ভোরের জন্য তারা ব্যাকুল হয়ে থাকে। মানবীয় আকর্ষণে জড়িয়ে আছে দুটি হৃদয়। এখানে স্বাদ আছে অথচ তৃপ্তি নেই, সুর আছে গান নেই, আবেগ আছে প্রকাশ নেই, ভালোবাসা আছে প্রেম নেই। ছোট ছোট স্বপ্নঅনুভূতিই তাদের পাথেয়।

অরোরা বলতে চায়, পারে না। শত কথার আড়ালে সেই কথাটা চাপা পড়ে থাকে সবসময়। ছাইচাপা আগুনের মত শিখাহীন ভাবে জ্বলে। দুটি হৃদয় পুড়ে তবু কেউ টু-শব্দটা করে না। অপ্রয়োজনীয় কথার আড়ালে চেপে রাখে আবেগ। এর নাম ভালোবাসা নাকি সুবিধাবঞ্চিত একটি মেয়ের প্রতি মানবিকতা, নাকি নিজের বুকের ভেতর চাপা কষ্ট ঢাকার চেষ্টা, তা বুঝতে পারে না মিতুল।

অরোরার সাথে কথা না হলে অস্তির হয়ে ওঠে মন, বোশেখের ঝড়ো হাওয়ার মতো হুঁ হুঁ কান্নায় হৃদয়টা হয়ে যায় ক্ষত-বিক্ষত। কিসের এই আকুতি, কিসের দহন বুকে তা বুঝে ওঠতে পারে না মিতুল। অরোরাকে ভালোবাসে এরকম কখনো মনে আসে না, আবার এড়িয়ে চলতেও পারে না।

অরোরা ছাড়া যেন সময় স্তব্ধ হয়ে যায়, জীবনআকাশে নেমে আসে আঁধার। কলেজ কামাই হচ্ছে, কেমন এক ঘোরের মধ্যে কেটে যাচ্ছে সময়। টুম্পাদের বাড়িতে যাওয়া হয় না অনেকদিন। আসার পর কিছুদিন গিয়ে ওদের পড়িয়েছিল। অরোরার সাথে বন্ধুত্ব হওয়ার পর আর যাওয়া হয়নি। ওরা কী ভাবছে কে জানে, হয়তো স্বার্থপর। আজ কোথাও যাওয়া হয়নি। দুপুরের খাবার পর শোয়ে শোয়ে নানান কথা ভাবছিল মিতুল। হাতের উপন্যাসটা বন্ধ হয়ে আছে। অরোরা কখন এসে শিথানে দাঁড়িয়েছে খেয়াল করেনি। মিতুলের কপালে হাত রেখে জানতে চাইল, কি হয়েছে আপনার?

চমকে উঠলো মিতুল, দরজাটা ঠিক তার চোখের সামনে। ঘরে প্রবেশ করতে তার সামনে দিয়ে আসতে হয়েছে। অথচ অরোরাকে দেখতে পায়নি সে। কেন এমন হলো, তাহলে কি সে দিন দিন মানসিক রোগী হয়ে যাচ্ছে।

অরোরা পাশে বসে বলল, বললেন না কি ভাবছেন? আমি সেই কখন এলাম অথচ আপনি বুঝতে পারেন নি
মিতুল সোজা হয়ে বসে বলল, কিছু হয়নি আমি আসলে ঘুমিয়ে পড়েছিলাম।
আপনি চোখ মেলে ঘুমান, তা তো জানতাম না।
সব সময় না, যখন দিবাস্বপ্ন দেখি তখন। চোখ বন্ধ রাখলে স্বপ্ন দেখব কিভাবে।

আপনি খুব কঠিন প্রকৃতির মানুষ, বুকে অনেক কষ্ট চেপে রেখে অনায়াসে হাসতে থাকেন। কারো সাথে নিজের কিছু শেয়ার করেন না। নিজের দুঃখ আড়াল করে অন্যকে আনন্দ দেয়ার চেষ্টা করাটা অপরজনের প্রতি উদারতা দেখানো হলেও নিজের সাথে কি প্রতারণা করা হচ্ছে না? আমি তো আপনার পর কেউ নই।

বন্ধু বলতে পারেন, সঙ্গীও ভাবতে পারেন। আপনার গোপন কষ্টগুলো যদি আমার সাথে শেয়ার করেন তাহলে কিছুটা হলেও হালকা হতে পারবেন। হয়তো আপনার কোন উপকারেই আমি আসব না। কিন্তু সুখ দুঃখের অংশীদার তো হতে পারলাম।

প্রতিদিন আমরা ঘুরে বেড়াই, আনন্দ করি, তারপরও আপনার মনে একটা কালো ছায়া ভেসে থাকে। সেই মেঘ দেখে আমার সকল আনন্দ গোপন বিষাদে রূপ নেয়। কেন এই দূরত্ব আমরা কি ভালো বন্ধু হতে পারি না? এ কয়দিনে আপনাকে যতটুকু জেনেছি তাতে মানুষ সম্পর্কে আমার ধারণা পাল্টে গেছে। আমার বাবাকে দেখে ভেবেছিলাম পুরুষ মানেই হিংস্র, পুরুষ মানেই নিষ্ঠুর, পুরুষ মানেই নারীর প্রতি নির্মম আচরণ।

কিন্তু পুরুষ নারীকে এভাবে ভালোবাসতে জানে, সহমর্মী হয়, সম্মান দেয়, নারীর চাওয়াকে নিজের চাওয়ার রূপ দেয় নারীর ইচ্ছাকে নিজের ইচ্ছার মতো প্রাধান্য দেয়, আপনার সাথে না চললে তা অজানাই থেকে যেতো। প্রশ্রয় যেহেতু দিয়েছেন একবার বিশ্বাস করেই দেখুন আমাকে। প্লি¬জ মিতুল ভাইয়া চুপ করে থাকবেন না, একটা কিছু বলুন। অরোরা মিতুলের হাত চেপে ধরে চোখের দিকে তাকিয়েই চমকে উঠল, মিতুলের চোখ থেকে অশ্র“ ঝরছে।

তোমাকে অবিশ্বাস করার কিছু নেই। তুমি এতো ভালো একটি মেয়ে যার কোন তুলনা হয় না। তোমাকে বন্ধু হিসাবে পাওয়া যে কারো জন্য সৌভাগ্য। কিন্তু আমি আজ অসহায় আমার জীবনের গল্পের সাথে মিশে আছে অন্য এক জগতের ইতিহাস। যেখানে সাধারণ মানুষের প্রবেশাধিকার নেই। এতে তার ক্ষতি হয়। তোমাকে যদি সব বলতে পারতাম তাহলে আমি হালকা হতাম। তুমি আমাকে বন্ধু ভাবতে, বিশ্বাস করতে। কিন্তু এ কষ্ট যে কেবল আমার একাই বহন করতে হবে। শুধু এটুকু বলছি এখানে গোপনীয়তার ব্যাপার না থাকলে অবশ্যই তোমাকে বলতাম। তবে আমি কথা দিচ্ছি যেদিন সময় হয় সে দিন অবশ্যই সব তোমাকে খুলে বলবো।

অরোরা মিতুলের চোখের জল মুছে দিয়ে বলল, বেশ আমি সেই দিনের অপেক্ষায় রইলাম। আর সেদিন কখনো যদি না আসে তাতে আমাদের বন্ধুত্বে ফাটল ধরবে না। সে প্রসঙ্গ পাল্টে বলল, বিকালে কোথায় যাচ্ছি আমরা?
কোথাও যাচ্ছি না। আজ একটু কাজ আছে আমার।
বেশ আপনি বিশ্রাম নেন, আমি আসি।

অপরাধ বার্তার ধারাবাহিক আয়োজন মুক্তির মরীচিকা প্রতি সাপ্তাহে একটি করে পর্ব প্রকাশ করা হবে। চলবে…

দেখা হয়েছে: 38
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • ভারপ্রাপ্ত সম্পাদকঃ ফয়সাল হাওলাদার মোবাইল ০১৭৩২-৩৭৯৯৮২
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।