|

মুক্তির মরীচিকা ধারাবাহিক উপন্যাস: আরিফ আহমেদ (পর্ব ১৫)

প্রকাশিতঃ ২:৩৭ অপরাহ্ন | মে ০৪, ২০১৮

মুক্তির-মরীচিকা-Release Mirage Series Arif Ahmed (episode 15)

সন্ধ্যার পর যখন অন্ধকার হয়ে উঠছে প্রকৃতি ওরা পৌঁছলো মধুপুর গড়ে। বন দেখে পুলকিত অরোরা। বন মানুষকে মুগ্ধ করে, বন মানুষকে উদাস করে, বনের সজীবতা হৃদয় কাড়ে। প্রাণোচ্ছ্বাস দেহে জাগায় শিহরণ। কিন্তু এই উচ্ছ্বাসের পাশে ভীতিও কম নয়। বনে আছে আঁধার, আছে হিংস্র পশু। বন হলো ডাকাতের আখড়া।

বেশিক্ষণ এখানে অবস্থান করা নিরাপদ নয়। কিন্তু উপায় কি? অরোরা তার খালার বাড়ির রাস্তা চিনতে পারছে না। মূল রাস্তা থেকে বনের ভিতর চলে গেছে অনেক পথ। অন্ধকারে তো দূরে থাক দিনের আলোতেও তার পথ চেনা সম্ভব নয়। সবকটা রাস্তাকেই তার একই রকম মনে হচ্ছে। জিগ্যেস করার মতোও কাউকে পাওয়া যাচ্ছে না। যাবে সে রকম আশাও নেই। শেষে ঘুরতে ঘুরতে সামনে একটা বাংলো দেখে নিরাশার মাঝে আশার আলো খোঁজে পেলো তারা।

গাড়ীর হর্ন শুনে একজন বৃদ্ধলোক বেরিয়ে এলো। অরোরা আগে নেমে বৃদ্ধকে জিগ্যেস করলো, দাদু এখানে কি থাকা যাবে?
বৃদ্ধ বলল, এখানে তো একটা মাত্র ঘর আছে থাকার। তার পর সে মিতুলের উপর চোখ বুলিয়ে অরোরার দিকে ফিরে জানতে চাইলো, আপনাদের পরিচয়?

মোহনীয় হাসি উপহার দিয়ে সে বলল, আমরা ঢাকা থেকে এসেছি। স্বামী-স্ত্রী। নতুন বিয়ে করেছি। এ দিকে বেড়াতে এসেছি আত্মীয়ের বাড়িতে। রাস্তায় গাড়ি নষ্ট হয়ে যাওয়ায় দেরি হয়ে গেলো। জানেন তো রাস্তাÑঘাটে ডাকাতের ভয়। তাই ভাবছি যদি একটু আশ্রয় মিলে রাতটা পার করে যাই।

বৃদ্ধ ব্যস্ত হয়ে বলল, না না আশ্রয় বলছেন কেন। আসুন আসুন। এই বনে বিপদের কি কোনো শেষ আছে। কত মানুষ হয় সর্বশাস্ত।

বৃদ্ধ তালা খুলে চলে গেলে অরোরা মিতুলের দিকে ফিরে চোখ টিপলো।
মিতুল কিছুটা বিরক্ত হয়ে বলল, কি দরকার ছিলো এভাবে মিথ্যা বলার?
তোমার খালুর কথা জিগ্যেস করলেই তো পারতে।
তাহলে তো আর বনে থাকা হতো না। ওহ! এমন সুন্দর রাত জীবনে আর একটাও আসেনি।

মুগ্ধ হয়ে সে চোখ বুলাল ঘরের দেয়ালে। প্রাকৃতিক দৃশ্য ও পশুপাখির ওয়ালপেন্টিং। সবগুলোই কাঠের উপর কারুকাজ করা।
সোফা, ড্রেসিং টেবিল, ও প্রাচীন একটা বনেদী খাটে সুসজ্জিত রুমটি। অরোরা পোশাক পাল্টে এসে বলল, চলুন বারান্দায় গিয়ে বসি।

ততক্ষণে আকাশে উঁকি দিয়েছে চাঁদ। রূপালী জোছনা ভরে উঠেছে চারদিক।
চাঁদের আলোয় বনটাকে মনে হচ্ছে আকাশ ছোঁয়া প্রাচীর। সে প্রাচীর ভেদ করে চালুনির ছিদ্রের ন্যায় টিকরে পরছে জোছনা। রুপালী জোছনা সাদা কুয়াশার গায়ে লেগে টলমল করছে মাখনের মতো।

মিতুল চাঁদের দিকে তাকিয়ে বলল, জানো জোছনা আমার খুব প্রিয়। চাঁদনী রাতে আমি ঘুমাতে পারি না। পূর্ণিমা রাতে নির্জনে বসে গান গাইতে ইচ্ছে করে। সাধ জাগে হাঁটতে হাঁটতে হারিয়ে যাই দুরে।

অরোরা দুষ্টুমি করে বলল, কবিতা লেখা শুরু করেন। দেখবেন সব ঠিক হয়ে গেছে। কবিতার প্রেমে যে পড়ে সে জগতের সব উপেক্ষা করতে পারে।

মিতুল গাছের ডগায় ঝুলে থাকা চাঁদটার দিকে তাকিয়ে থেকে বলল, মাঝে মাঝে খুব ইচ্ছে হয়, সুকান্ত, জীবনানন্দ কিংবা এ যুগের কবি নির্মলেন্দু গুণের মতো করে জগত ও তার প্রকৃতিকে দেখতে। কিন্তু সে ক্ষমতা কোথায় আমার! স্রষ্টা যে এতো যতœ করে গড়েনি আমায়।

অরোরা মিতুলের হাত টেনে বলল, এখানে দাঁড়িয়ে থাকলে কি কবি হতে পারবেন। চলুন না হুমায়ুন আহমেদের মতো বনের পথে হাঁটতে হাঁটতে জোছনার জলে স্নান করে আসি। দেখবেন কেমন সুর সুর কাব্য বেরিয়ে আসে।
মিতুল দ্বিধা প্রকাশ করে বলল, এখন যাওয়া কি ঠিক হবে?
অরোরা বিরক্ত হয়ে বলল, এতো হিসাব কষে কি চলা যায়, চলুন না।
যাওয়ার ইচ্ছে তারও। তাই বলল, দাঁড়াও আমি আসছি। সে রুমে প্রবেশ করে ক্ষণিক বাদে ফিরে এসে বলল, চল।
দুই পাশে গাছের সারি, মাঝখানে সরু পথে এগিয়ে চলছে ওরা।

জোছনা আর আঁধারের লুকোচুরি খেলা। ঝিঁ ঝিঁ পোকার ডাক। দু’একটা নেশাচর পাখি উড়ে গেলো। অরোরা বলল, এমন একটা রাত আমার জীবনে আসবে কোনদিন ভাবিনি। পরাধীন জীবনে মানুষ কতো অসহায়, তার চিন্তা-চেতনাগুলো হয়ে যায় দূর্বল। আত্মশক্তি লোপ পায়, নিজের উপর আস্থা হারিয়ে ফেলে। আজ মুক্ত সময়ে যে কাজগুলো করছি অনায়াসে, তখন তা ভাবতেও অবাক লাগতো।

তোমাকে প্রথম দেখে আমি খুব আশ্চর্য হয়েছিলাম। একজন মানুষ কি করে পারে এতোটা বন্দিত্ব মেনে নিতে। কারাগারের বন্দিরাও সুযোগ পেলে মুক্তির পথ খোঁজে। আর তুমি কিনা নিজেই নিজের বন্দিত্বকে প্রশ্রয় দিচ্ছ।
আব্বুর সাথে রাগ করেই অবশ্য এমনটা করেছি। পাশাপাশি এটাও মনে রেখেছি জীবন এখানেই শেষ নয়।

তা আমি মুক্ত আকাশের নিচে প্রথম দিন তোমাকে দেখেই বুঝেছি। বিস্মিতও হয়েছি। পুরুষ কখনো নারী মুক্তির কথা ভাববে না। এতে তার কোন সার্থকতা নেই। মিথ্যে অহমিকার পৌরুষরক্ত আমাদের ধমনীতে, নারীর সেবা পেয়ে অভ্যস্ত। আবার নারী অসুস্থ হলে তার সেবা করতে আমাদের দ্বিধা। একবারও ভাবি না সে যদি আমার সেবা করতে পারে আমি কেন তারটা করতে পারবো না।

পুরুষের প্রয়োজনেই নারীকে স্বাধীনতা দেওয়া উচিত। নারী এখন তার প্রতিবন্ধক হয়ে আছে। পুরুষের হাত না ধরে সে ঘর থেকে বেরুতে পারে না। বিপদে কান্না ছাড়া কিছুই করার নেই তার। স্ত্রীকে শোপিসের মতো সাজিয়ে না রেখে সহযাত্রী করে নিলে সব কাজ আরো অনেক সহজ হয়ে যাবে। সবাই যদি একই চিন্তা করে সব নারীরা যদি সমানভাবে এগিয়ে চলে সব জায়গায় যদি পুরুষের পাশাপাশি নারীরা থাকে তাহলে নারীনির্যাতন, ধর্ষণ, অপহরণ সব বন্ধ হয়ে যাবে। অবাধ বিচরণ কোনো প্রতিবন্ধকতা নয় বরং দূরত্বই হীন আকর্ষণ বৃদ্ধি করে।

আজ নারী অবলা বলেই দুশ্চরিত্র পুরুষ তার উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে, যদি তাদের অবস্থান সবল ও স্বাভাবিক হতো তাহলে সম্ভব হতো না। ট্রেন, বাস, লঞ্চে, পুরুষ গাদাগাদি করে দাঁড়িয়ে আছে। কিন্তু সেখানে একজন নারী আসলেই সবাই আগ্রহী হয়ে ওঠে একটু জায়গা করে দেওয়ার জন্য। তারপর কেউ চেষ্টা করে পিঠে পিঠ ঠেকাতে, বুক ঠেকাতে, কেউ একটু হাত বাড়িয়ে দেয় ছোঁয়ে দেখার জন্য। কেন এই পৈশাচিকতা! যদি এমন হতো নারী পুরুষ এক সাথে দাঁড়িয়ে আছে, কেউ কারো প্রতি সৌজন্য বাদে আগ্রহ দেখাচ্ছে না, তাহলে কেমন হতো?

সুন্দর চিন্তা করতে হলে প্রয়োজন একটা সুশিক্ষিত প্রগতিশীল জাতি। কিন্তু কোথায় তৈরি হবে সে জাতি? আমাদের স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে শিক্ষার চেয়ে রাজনীতি, মানবতার চেয়ে প্রতিহিংসার চর্চা হয় বেশি। অশিক্ষিত বা সন্ত্রাসী বাহিনীর মতো আমাদের বিদ্যাপীঠের শিক্ষকরাও সরকারি আর বিরোধী দলে বিভক্ত। আমাদের ধ্যান-ধারণাটাই হয়ে গেছে এমন, আমি যে দলের রাজনীতি করি সে দলের ভুল ধরা যাবে না, সমালোচনা করা যাবে না। তার অন্যায়টাকে যুক্তি দিয়ে সম্ভব না হলে শক্তি প্রয়োগ করে হলেও সঠিক বলে মানতে বাধ্য করতে হবে অন্যদের।

তুমি যে চিন্তা করছো তাতো আদর্শ সভ্য জাতির চিন্তা। আমরা তো জাতি হিসাবে উন্নত হওয়ার চিন্তা করি না, লুটপাট করে ধনী হওয়ার কথা ভাবি। তুমি একটু খেয়াল করলে দেখবে এদেশে যারা রাজনীতিবিদ, নেতা, দেশপ্রেমিক, জনদরদী সাইনবোর্ড নিয়ে বিচরণ করছে। ওদের কারো ছেলেমেয়েই এদেশের কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে লেখাপড়া করছে না। ইউরোপ, আমেরিকার কোন দেশে তারা পড়ছে। যদিও কালেভদ্রে থেকে থাকে, তারা পড়ছে কোন ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলে। কারণ তারা জানে শিক্ষার সুস্থ পরিবেশ এদেশে নেই। সে পথ তারা রুদ্ধ করে রেখেছে। অপরাজনীতি আর কুশিক্ষার সে প্রভাব পড়ছে আমাদের সমাজে। জীবন যাত্রায় সুস্থ পরিবেশ আসবে কোথা থেকে?

অরোরা থেমে বলল, আমাদের মনে হয় ফিরে যাওয়া উচিত।
এতোক্ষণে মিতুলের খেয়াল হলো। অনেক দূর চলে এসেছে তারা। যে বনে দিনেই চলা বিপদজনক সেখানে রাতের বেলা বনের গভীরে প্রবেশ করাটা একেবারেই অনুচিত হয়েছে। যা হোক তারা উল্টোপথ ধরলো। কিছুক্ষণ চলার পর বুঝলো পথ হারিয়েছে। চাঁদ এখন মাথার উপর। পথ চলতে কোন সমস্যা হচ্ছে না। এক জায়গায় এসে অরোরা মিতুলের হাত চেপে ধরল।

ইশারায় বনেরমধ্যে দেখাল কয়েকজন লোক কি যেন করছে। ওরা কারা তা মিতুল জানে এবং বিপদ নিকটবর্তী বুঝতে বাকি নেই। তবু অভয় দিয়ে বলল, ভয় নেই, মনে হয় ডাকাত। শোনে রক্ত হীম হয়ে গেলো অরোরার। সাথে যা আছে তা নিয়ে গেলে দুঃখ নেই। একটা তরুণী মেয়েকে হাতের কাছে পেয়েও রেখে যাবে, এতোটা বেরসিক নিশ্চয়ই ডাকাতরা নয়। তবু নিজেকে সাহস দিলো, কিচ্ছু হবে না, ওরা বুঝতেই পারবে না। আর একটু সামনে গেলেই ওদের চোখের আড়াল হয়ে যাবো। আড়াল হয়েছে বটে তবে স্বস্থির নিঃশ্বাস ফেলার আগেই বনের মাঝ দিয়ে এসে ওরা পথ আগলে দাঁড়াল। মোট পাঁচ জন।
অরোরা নিজেকে নির্ভীক রাখার চেষ্টা করলো। মিতুল ভাবলেশহীন।

মিতুল বলল, পথ আটকেছেন কেন?
ওদের একজন মুখ বিকৃত করে অরোরার দিকে ফিরে বলল, হরিনীডারে একলা খাইবি আমরা কি আঙ্গুল চাটুম। আরেকজন অরোরার দিকে এগুতে এগুতে অন্য গুলোকে অর্ডার করলো- তোরা সোনার চানডারে কিছু উত্তম-মাধ্যম দিয়া আয় আমি হরিণডারে লইয়া যাই। বেশি চেচ্যাইলে খতম কইরা দিস।
মিতুল বুঝতে পারলো আর সময় দেওয়া যায় না।

বাম হাতে অরোরাকে টেনে সরিয়ে দিয়ে ডান পা-টা সামনের লোকটার মুখ বরাবর দিলো চালান করে। শিকারের দিক থেকে আক্রমণ আসতে পারে এ তাদের ভাবনাতীত। কি ঘটলো বুঝতেও সময় লাগলো। ততক্ষণে আরেকজনের গাল মিতুলের আদরে হলো রক্তাক্ত। তারা এবার অরোরাকে ত্যাগ করে আগ্রহী হলো মিতুলের প্রতি। অরোরা তফাতে দাঁড়িয়ে দেখছে মিতুলকে। এ তার সেই মিতুল নয়। অচেনা-অজানা সমুদ্রে যেন ডুবে গেল সে। এ মিতুল যে তার নব আবিস্কার। হয়তো এমনি কত অজানা রয়ে গেছে তার। শত বছর গলধ:করণে পরও মনে হবে এখনো বাকি অনেক। একটু আগেও যে ছিলো শান্ত, সে এখন হিংস্র। যে কন্ঠে ছিলো কোমলতা সেখানে এখন গর্জন। ক্লান্তিহীন, দ্বীপ্তিময় মুখাবয় মিতুলের।

মিতুলের চিৎকারে ধ্যান ভাঙ্গালো তার। একটা ডাকাত ধারালো অস্ত্র নিয়ে এগিয়ে আসছে অরোরার দিকে। চাঁদের আলোতে ঝিকমিক করছে। সে কিংকর্তব্যবিমূঢ়। দৌড়ে মিতুলের দিকে আসতে পারবে না। বনের দিকে গিয়েই লাভ কি। ভয়ে চোখ বন্ধ করলো সে।

অপরাধ বার্তার ধারাবাহিক আয়োজন মুক্তির মরীচিকা প্রতি সাপ্তাহে একটি করে পর্ব প্রকাশ করা হবে। চলবে…

দেখা হয়েছে: 44
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • ভারপ্রাপ্ত সম্পাদকঃ ফয়সাল হাওলাদার মোবাইল ০১৭৩২-৩৭৯৯৮২
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।