|

মুক্তির মরীচিকা ধারাবাহিক উপন্যাস: আরিফ আহমেদ (পর্ব ৮)

প্রকাশিতঃ ৯:৪০ অপরাহ্ন | মার্চ ০৯, ২০১৮

আলমাছ মুন্সির প্রস্তুতি শেষ। মিতুল তার সাথে এয়ারর্পোট পর্যন্ত যাবে। ড্রাইভার গাড়িতে মালপত্র তুলছে। আলমাছ মুন্সি সাহেবকে বিদায় দেওয়ার জন্য এসেছেন অনেক আত্মীয়-স্বজন ও প্রতিবেশি। তিনি সবার সাথে অশ্র“সিক্ত নয়নে কুশল বিনিময় করলেন। ভুলত্র“টির জন্য ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছেন। কার জন্য কী আনতে হবে সে তালিকাও বাদ যাচ্ছে না। আতরী এসে সালাম করে বলল, খালুজান আমার জইন্যে একটা ভালো দেইক্যা আতর আনবেন। তার কথা শুনে সবাই হেসে উঠলো।

আলমাছ মুন্সি তার মাথায় হাত বুলিয়ে বললেন, তোর নামটা আতরী হয়েছে বলে আমার উপর খুব রেগে আছিস, তাই না ? ঠিক আছে আমি হজ থেকে ফিরে এসে তোর সুন্দর একটা নাম রেখে দেবো।
আতরী বলল, তয় এ রকম গন্ধওলা নাম না, আগেরটার মতো নরম।

আলমাছ মুন্সি জাহানারা বেগমের কক্ষে প্রবেশ করলেন। কিছু সময় চুপ করে থেকে বললেন, তোমাকে আর কি বলব ? বরং তুমিই আমাকে কিছু বলে দাও। পৃথিবীর সবার সাথে অভিনয় করলেও স্ত্রীর সাথে করা যায় না। একজন পুরুষকে তার স্ত্রীই সবচেয়ে বেশি জানে। আমার প্রতি তোমার প্রচণ্ড ক্ষোভ তা আমি জানি। জীবনের বহুটা সময় আমাদের একসাথে কাটলেও কোথায় জানি একটা দূরত্ব রয়ে গেছে। আর তার জন্য দায়ি আমিই।

দরিদ্র পরিবারে জন্মেছিলাম তাই ছোটবেলা থেকে বড় হওয়ার তীব্র আকাঙ্খা ছিল আমার। আর তা হতে গিয়ে বেশকিছু অন্যায় আমার বাধ্য হয়েই করতে হয়েছে। অবশ্য তা বহু বছর পূর্বের কথা। দেশের পরিস্থিতি তখন প্রতিকূল, ভাল মন্দের তফাৎ বুঝা ছিল কঠিন। স্বার্থের দিকে চেয়ে অনেক অন্যায় তখন করে ফেলেছি। তোমাকে ভালোবেসেছিলাম বলে ইচ্ছায় হোক আর অনিচ্ছায় হোক একটি অপরাধ তোমার প্রতিও করেছি। সে রাতে জোর করে বিয়ে করা ছাড়া আমার কোন গতান্তর ছিলো না। তোমার মাÑবাবা কোন অবস্থাতেই আমার হাতে তুলে দিতেন না তোমাকে। সারা জীবন মানসিক যন্ত্রণায় দগ্ধ হতাম আমরা। তোমার আমার মাঝে ঝড়ের রাতে যা ঘটেছিল তা তো আর কেউ জানতো না। তাই আমি যা করেছি তোমাকে ভালোবেসেই করেছি, পাওয়ার জন্য করেছি।

জাহানারা বেগম আলমাছ মুন্সির কাছে এসে বললেন, তুমি শুধু শুধু অনুতপ্ত হচ্ছ। আমি সব জানি ও বুঝি। জীবনের প্রভাত মধ্যাহ্ন পেরিয়ে গোধূলিতে এসে পৌঁছেছি, এখন আর এসব ভেবে কী লাভ!
আলমাছ মুন্সি হাসিমুখে বললেন। যাবার বেলায় কি মেয়েটাকে দেখতে পাব না ?
আমি মেয়েকে আগেই বলেছিলাম। অনেকদিন তোমার সামনে আসেনি তো, তাই লজ্জা পায়।
ঠিক আছে থাক। তবে মেয়ের জন্য কী কী আনতে হবে বলে দাও।
মেয়ে বড় হয়েছে বিয়ে দিতে হবে। যা প্রয়োজন নিয়ে এসো।

বেশ তাই হবে। আর শোনো মিতুল ছেলেটি সত্যিই খুব ভালো। যদি ফিরে না আসি ছেলেটিকে এ বাড়িতে রেখে দিও। আলমাছ সাহেব সবার কাছে বিদায় নিয়ে গাড়িতে চড়লেন। মিতুল গেল সাথে। এয়ারপোর্ট নেমে আলমাছ মুন্সি মিতুলকে বললেন- আজ সারাদিন গাড়িতে ঘুরে বেড়াও। সিলেট শহরটা খুব সুন্দর ভালো করে দেখে যাও। তারপর ড্রাইভার কে বলে দিলেন কোথায় কোথায় যাবে।

শহরে প্রবেশ করে ড্রাইভার জিজ্ঞেস করল- স্যার কোন দিকে যামু ?
তোমার যে দিকে খুশি যাও। মিতুলের নিরাবেগ উত্তর ।

এলোপাতারি অনেক্ষণ চলার পর দুপুরের খাবারের জন্য একটা হোটেলের সামনে গাড়ি থামল। খাওয়ার পর গাড়ির কাছে এসে শামুকের খোলসের ভিতর নরম মাংসের মতো ঝিমিয়ে থাকা শখটা আজ হঠাৎ মাথা চাড়া দিয়ে উঠলো। ড্রাইভারকে পাশে বসার অনুরোধ করে ড্রাইভিং সিটে বসলো মিতুল। ড্রাইভার প্রথমে আপত্তি করলো এ্যাকসিডেন্ট হতে পারে এই ভয়ে। মিতুল তাকে এতোটা সময় না দিয়ে স্টার্ট করলো ইঞ্জিন। শেষে বাধ্য হয়ে বেশ কিছু সতর্কতামূলক উপদেশ দিয়ে উদ্বি¦গ্ন মুখে পাশে বসল ড্রাইভার। গাড়ি এগিয়ে চলছে, চুম্বকের আকর্ষণে লোহার যেমন আত্মসমর্পণ, তেমনি। ড্রাইভার এবার উদ্বিগ্ন নয়, লজ্জিত। মিতুল তার চেয়ে অনেক ভালো ড্রাইভ করে। এ পরাজয় সে মেনে নিয়েছে। মিতুল পূর্বে তার মতো ড্রাইভার ছিলো না মালিক ছিলো, তা বুঝে উঠতে পারছে না। বাড়ির কাছাকাছি এসে চালকের আসন ছেড়ে দিলো মিতুল।

এদিকে তার জন্য অপেক্ষা করছিল আরেক বিস্ময়। গাড়ির মাথা যখন বাড়ির দিকে, মিতুল দেখল যে ঘরটায় সে থাকে তার ছাদে ঘরোয়া পোশাকে সেই হার্টথ্রব অসম্ভব সুন্দরী মেয়েটি হাঁটছে। বোরকা তো দূরে থাক ওড়না পর্যন্ত নেই। কাপড়-চোপড় ছেড়ে বাথরুমে ঢুকল সে। অনেক্ষণ সময় নিয়ে গোসলের পর ক্লান্তি দূর হয়ে গেলো। টাওয়ালে ভেজা চুল মুছতে মুছতে শিষ বাজিয়ে বাথরুম থেকে বের হয়ে সামনে তাকিয়ে তার চক্ষু স্থির। মেয়েটি মিতুলের পড়ার টেবিলে বসে খুব স্বাভাবিকভাবে বই ঘাঁটাঘাঁটি করছে। যেন অনেক দিনের চেনাজানা এভাবে বলল, আপনার অপেক্ষাতেই ছিলাম। আপনাদের তো অনেক আগে আসার কথা।

এতো দেরি হলো কেন। আমি আবার ভাবছি এক্সিডেন্ট করে রাস্তায় পরে আছেন কিনা। সে মুখ চেপে পিক করে একটু হাসলো।

মিতুলের বিস্ময় তখনো কাটেনি, নির্বাক সে। যেন এ গৃহ-কর্ত্রীটি প্রায়ই তাকে শাসন করে। অত্যাচারিত স্ত্রীর মতো বকবক করে। যার জন্য প্রহরের পর প্রহর চটপট করে কাটিয়েছে। নির্ঘুম থেকে রাতের তারা গুনেছে, সেই অপরুপা মেয়েটি এখন তার সামনে। গায়ে বোরকা নেই, মুখে নেকাব নেই, চোখে কালো চশমা নেই, হাতে মোজা নেই। একান্ত আপনজনের মতোই সামনে বসা। অধরে ভুবন ভুলানো হাসি, কণ্ঠে মৃদু শাসন। অথচ কি অ™ূ¢ত! আজ ওকে এতোটা দূর্লভ মনে হচ্ছে না মিতুলের। তাহলে কি এটাই পৃথিবীর নিয়ম, যা সীমানার বাইরে তা অমূল্য, যা পাওয়া যায় তা স্বাভাবিক?

মিতুল কে নিরব দেখে মেয়েটি মৃদু হেসে জিগ্যেস করলো, খুব অবাক হয়েছেন মনে হচ্ছে?
সে নিজেকে সামলে নিয়ে বলল- অবাক হবো না। যার সাথে দেখা নেই, কথা নেই, চিনি না এমনকি যার নামটি পর্যন্ত জানি না। সে যদি হঠাৎ এসে এভাবে শাসন শুরু করে দেয়, তাহলে অবাক হওয়ার কথা নয়?

আমরা একই বাড়ির বাসিন্দা, এভাবে বললে কেহ বিশ্বাস করবে? তবে হ্যাঁ দূরত্ব বটেই, একটা বিশাল প্রাচীর ছিল মাঝখানে, যে কারণে নি®প্রভ দেখা আর নির্বাক কথাই আমাদের ক্ষণিকের পরিচয়। ইচ্ছে ছিল কিন্তু তা এতোই অসাধ্য, আঁধার পেরিয়ে আলোতে আসার শক্তি তার ছিলো না।
সেই দুর্বল ইচ্ছা আজ এত শক্তি কোথায় পেলো?

রাত যখন শেষ হয়ে যায় তখন আঁধার এমনি পালায়। ছাদ ভেঙ্গে গেলে জে্যাঁৎস্নার আলো এমনি আসে, ডাকতে হয় না। দূরত্ব যে এনেছিল, প্রাচীর যে গড়েছিল তাকে আজ সকালে আপনি বিদায় দিয়ে এলেন।
এতো সাময়িক প্রভাতের বুকে ফোঁটা শিশিরের মতো। তারপর কি হবে ?

পূর্বে যা হয়েছিলো ।
যদি এসে সব জানতে পারে।
যা পরীক্ষিত তার বি®েফারণের ভয় নেই। আমার গৃহবন্দিত্ব নয়, স্বাধীনতা সবার কাম্য। এ বাড়ির প্রতিটা মানুষ চায় কিশোরী বয়সের মতো উঠোন জুড়ে খেলা করি, পুকুরের জলে লাফিয়ে পড়ি, বাগানের ফুল ছিঁড়ে কোপায় গেঁথে রাখি। শুধু একজন আমার স্বাধীনতার অন্তরায়। জানেন তো মানুষ নিয়ম করে, নিয়ম ভেঙ্গে স্বস্তি পাওয়ার জন্য। আধাঁর আছে বলেই তো আলোর এতো মূল্য। দুধের গায়ে দাগ টানলে রেখা হয় না। যেভাবেই চলি আব্বু এসে কিছু জানতে বা বুঝতে পারবে না। কেউ বলবেও না।
যদি আমি বলি ?

অরোরা কিছুক্ষণ মিতুলের চোখের দিকে তাকিয়ে থেকে বলল, আপনি কখনও তা করবেন না। কারণ আপনি চান না আমি বন্দি থাকি।
তুমি মানুষকে খুব বিশ্বাস কর, তাই না ?
সবাইকে করি তা নয়, তবে যে বিশ্বাসী লোক তাকে অবিশ্বাস করব কেন?
মফিজ মিয়া মিতুলকে খাবার জন্য ডাকতে এলে অরোরা যেতে যেতে বলল, আপনি খাওয়া দাওয়া করুন, আবার দেখা হবে।
মিতুল তার চলে যাওয়া পথের দিকে তাকিয়ে রইলো।

মফিজ আলমাছ মুন্সিকে অভিশাপ দিয়ে বলল, কী চঞ্চল মাইয়্যাডা! তারে অই বুইড়্যা কসাইডা ওরে ঘরে বন্দি কইরা রাখে। কথাগুলো বলেই মফিজ জিহ্বায় কামড় দিয়ে প্রশ্ন করে, ভাইজান আপনি কিছু মনে করেন নাই তো?
মিতুল প্রশ্রয়ের হাসি দিয়ে জানতে চাইলো- বন্দি করে রাখে কেন ?

হে মেলা কথা। আপামনির কোন দোষ নাই। নিজের জীবনে কোনোদিন ভালা কাম করে নাই তো, তাই কারো প্রতি বিশ্বাস নাই। মনডার মাঝে খালি কুবুদ্ধি আর কুবুদ্ধি। চলেন ভাইজান অত চিন্তা কইরা কোনো লাভ নাই। শয়তানডা যতদিন বাইরে আছে ততদিন আপামনি স্বাধীন। আপনি খাইতে চলেন ভাইজান।

মিতুল উদাসভাবে জবাব দিলো, আমি বাইরে থেকে খেয়ে এসেছি। মফিজ মিয়া চলে গেলে মিতুল ভাবলো হায়রে জীবন! মানবকোলে জন্ম নিয়েও মানুষের ভালোবাসা যে পেলো না, যে মানুষগুলো একান্ত কাছের, তার অন্নে, বাসস্থানে প্রতিপালিত, তার বিচ্ছেদে সে মানুষগুলো উদ্বিগ্ন না হয়ে আনন্দিত, তার হজ করলেই কি, স্বর্গে গেলেই বা কি? ষোল আনা জীবনই বৃথা।

অরোরার কথা ভেবে কষ্ট হলো তার। আর দশটা মানুষের মতোই পৃথিবীতে এসেছে সে। পৃথিবীকে ভালোবেসেছে, সুন্দরভাবে বেঁচে থাকার স্বপ্ন দেখেছে, অথচ কী নির্মম! জীবনের সবচেয়ে সোনালি সময়টা কাটাতে হচ্ছে তার অপরাধ না করেও অপরাধীর মতো আবদ্ধঘরে। এ কেমন নিয়ম, এ কেমন সভ্যতা! পরাধীনতা কি ধমের উপাদার্ন হতে পারে?

মেয়ে হয়ে জন্ম নেওয়াটাই কি তার অপরাধ? যৌবনে মেয়েরা বন্দি হয় ঘরে আর ছেলেরা নেমে যায় পথে। দুজনেই মানুষ অথচ দুয়ের জীবনযাপনে কতো তফাৎ।

অপরাধ বার্তার ধারাবাহিক আয়োজন মুক্তির মরীচিকা প্রতি সাপ্তাহে একটি করে পর্ব প্রকাশ করা হবে। চলবে…

দেখা হয়েছে: 89
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ [email protected]
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।