|

মুক্তির মরীচিকা ধারাবাহিক উপন্যাস: আরিফ আহমেদ (পর্ব ৯)

প্রকাশিতঃ ১:৫৪ পূর্বাহ্ন | মার্চ ১৬, ২০১৮

অরোরার সাথে মিতুলের বেশ ভাব হয়ে গেছে। অবসর সময়টা জমিয়ে আড্ডা দেয় তারা। মিতুলের চিন্তা, চেতনা ও কাজে সারাক্ষণ জড়িয়ে থাকে অরোরা। অসাধারণ গুণের অধিকারী মেয়েটি। অথচ অন্ধকার কক্ষে বসেই কাটে তার সময়। বোঝার উপায় নেই এ সমাজ আর পৃথিবী থেকে দুরে থাকে মেয়েটি।

কাজী বাড়িতে আজকাল খুব একটা যাওয়া হয় না। বিকালের সময়টা অরোরার সাথে গল্প করে কাটে। না যাওয়ার পেছনে আরেকটি দূর্বলতা ঢাকার প্রবণতাও আছে। সে যাওয়ামাত্র টুম্পা এত বেশি চঞ্চল হয়ে ওঠে সে মুহূর্তে নিজেকে খুব অসহায় আর অপরাধী মনে হয়। একটা নিষ্পাপ কিশোরী মেয়ের ভালোবাসার কোন মূল্যই সে দিতে পারবে না। শুধু শুধু কষ্ট বাড়িয়ে কি লাভ?

টুম্পার মতো আরেকটি কষ্টের ভ্রুণ জন্ম নিচ্ছে এখন অরোরার হৃদয়গর্ভে। তার তিল তিল বেড়ে ওঠা স্পষ্ট দেখছে মিতুল।
নারীর আছে আবেগ, আছে প্রেম, আছে ভালোবাসা, আছে স্নেহ, আছে মমতা। এতো ঐশ্বর্য আছে বলেই তো সে সুকুমারী স্বপ্নযামিনী। সে অনায়াসে ভালোবেসে সোনালি সুখের নীড় গড়ার স্বপ্ন দেখে। মাতোয়ারা হয় অনন্তকালের নীল সমুদ্রে ডুব দিতে।

আর সুবিধাবাদী পুরুষ আড়ালে হাসে উপহাসের হাসি। নারীর সামনে সে স্বপ্নে বিভোর হয়, সুখের রং ছড়ায়। কোমলমতি নারী তা বিশ্বাস করে নিজেকে সঁপে দেয় হাসতে হাসতে। যাকে ঘিরে তার এতো স্বপ্ন, ভাবনা, ত্যাগ ও সুখ, সে কিনা সুযোগ পেলেই করে প্রতারণা। এরচেয়ে বড় কষ্ট তার আর কি হতে পারে ?

ভাইজান, খালাম্মা আপনারে ডাহে। দরজায় দাঁড়িয়ে আছে- আতরী। আলমাছ মুন্সি চলে যাওয়ার পর এ বাড়ির সব জায়গা সবার জন্য উন্মুক্ত। অথচ পূর্বে কখনোই কাউকে বাইরে আসতে দেখেনি মিতুল। হায়রে আলমাছ মুন্সি তোমার ষোল আনা জীবনই বৃথা। মিতুল সোজা হয়ে বসলো। আতরী মিটিমিটি হাসছে। তার বুদ্ধিদীপ্ত চোখ দুটি সবকিছুতেই রহস্য খুঁজে। তার হাসি বলে দেয় কিছু একটা ঘটেছে বা ঘটবে।

মিতুল বলল, তুমি যাও, আমি আসছি।
আতরী চলে গেলে সে পায়চারি করতে করতে ভাবতে লাগলো- বেগম সাহেবা তাকে কেন ডেকে পাঠালেন। অরোরার সাথে অধিক সময় কাটানোতে তার আপত্তি; তাই ডেকে দুকথা শুনিয়ে দেবেন। নাকি অন্য কিছু? যদি জিগ্যেস করেন এতো কী কথা বল তোমরা। অথবা সাবধান করে দিলেন- অরোরার সাথে বেশি মিশবে না। তোমার দ্বারা তার কোনো ক্ষতি যেন না হয়। যেহেতু এ সংসারের সে কেউ না। যার অধিকার থাকে সে অন্যায় করেও বুক উচু করে দাঁড়িয়ে থাকতে পরে, যার নেই সে দূর্বল চিত্তে অপেক্ষা করে অপরাধী হওয়ার, কারণ তার দাবি ক্ষীণ।

বেগম সাহেবার সামনে এসে বসেছে মিতুল। সে যা ভেবেছিল সে রকম কোনো কথা বা প্রশ্ন তাকে এখনো করা হয়নি। যা বলছেন তা লন্ডন প্রবাসী তার দুই ছেলের ব্যাপারেই। মিতুলের মন উসখুস করতে লাগলো, মূল কথাটা শুনার জন্য।

এবার হঠাৎ করেই তিনি শুরু করলেন, অরোরার সাথে তো তোমার কথা হয়েছে। ঘুরে বেড়ানো তার খুব শখ। তার বাবার নির্দেশে অন্ধকারেই সময় কাটে সারা বছর। কত বছর হয়ে গেলো কোথাও বেড়াতে পর্যন্ত যেতে পারেনি। মা হয়েও কিছু করার নেই আমার, কষ্ট পাওয়া ছাড়া। কিছুক্ষণ থেমে আবার বললেন, ওর বাবা যে ক’মাস দেশের বাইরে আছেন তুমি যদি একটু সময় দাও, মাঝে মাঝে এদিক ওদিক ঘুরিয়ে নিয়ে আসো তাহলে ওর মনের কষ্ট কিছুটা হলেও হালকা হবে। ওর ভাইয়েরা দেশে থাকলে কষ্টটা তোমার করতে হতো না। আমি আর কোথায় নিয়ে যাব। তুমি ক’টা দিন একটু কষ্ট করো বাবা।

কষ্ট বলছেন কেন? অরোরার কাছে সব শুনে খুব খারাপ লেগেছে আমার। সে খুব স্বাধীনতাপ্রিয় মেয়ে। বন্দি জীবনটা তাকে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত করে তুলেছে। ঘুরে বেড়ালে মন হালকা থাকবে। যখন যেখানে যেতে চায় আমি নিয়ে যাবো। কিন্তু অরোরা কি যাবে আমার সাথে?

সেই তো আমাকে ধরেছে তোমাকে বলার জন্য।
মিতুল উঠে দাঁড়িয়ে বলল, যেদিন যেতে হয় আমাকে বলবেন।
সে রুমে এসে দরজাটা চাপিয়ে একটা দীর্ঘশ্বাস ছাড়লো। অরোরা আগে থেকেই বসে আছে, মিতুল তা দেখতে পায়নি।
অরোরা দুষ্টুমি করে বলল, দায়িত্বের কথা শুনেই এতবড় দীর্ঘশ্বাস। যখন কাঁধে চড়বো, তখন কি করবেন?
সাধে কি ছেড়েছি, এই অপ্সরাকে সাথে নিয়ে বাইরে গিয়ে শেষে ফিরে আসতে পারি কি না তাই ভয় হচ্ছে।
ধরে রাখার ক্ষমতা যার নেই তার সাথে ফিরে না এসে হারিয়ে যাওয়াই ভালো।

এ এমনি এক মায়া যাকে হারানো যায় না আবার ধরে রাখাও দায়। মিতুল সামনের চেয়ারটায় বসে বলল, তা ম্যাডাম কবে বেরুচ্ছি আমরা?
কবে নয়, আগামীকাল থেকেই যাত্রা শুরু করতে চাই। পথ চলার সঙ্গী যখন পেয়েছি তবে আর দেরি কেন?
প্রথমে কোথায় যাচ্ছি?
পাহাড়ে। উঁচু কোন পাহাড়ে নিয়ে চলুন। যেখানে পাখি আছে, ঝরনা আছে।
এত জায়গা থাকতে পাহাড়ে কেন?

আমার কষ্টের পাহাড়টাকে মাটির পাহাড়ের কাছে রেখে আসতে।
এতোদিনের যতেœ গড়া সম্পদ ফেলে না দিয়ে আমাকে দিয়ে দাও, যতন করে রেখে দেই।
কষ্টকে লালন নয়, ভুলে যেতে চাই। আপনার কাছে রাখলে আমার সাথে সাথে ঘুরবে।
বেশ পাহাড়েই যাব। তবে অনেক দূর। সকাল সকাল যেতে হবে।
অরোরা চলে যেতে চেয়ে আবার ফিরে এসে বলল, আপনি ড্রাইভ করতে পারেন?
কিছু কিছু পারি। কিন্তু ড্রাইভার তো আছে।

এই পাজিটাকে সাথে নেওয়া যাবে না। দৃষ্টি ভালো না।
কাননের দিকে তাকালে সবার চোখই চকচক করে ওঠে।
বোরকা দেখেই যা, মানুষটা দেখলে না জানি কি হয়।
এখানেই তো রহস্যটা। আড়ালে কি আছে তা দেখার জন্য বুকটা মোচড় দিয়ে ওঠে।
থাক আপনাকে আর পাকামি করতে হবে না। আমি ওকে আজই তিন মাসের জন্য বিদায় করে দিচ্ছি।
আন্টিকে কি বলবে?
তা আপনার ভাবতে হবে না। আমি ম্যানেজ করতে পারব।

অপরাধ বার্তার ধারাবাহিক আয়োজন মুক্তির মরীচিকা প্রতি সাপ্তাহে একটি করে পর্ব প্রকাশ করা হবে। চলবে…

দেখা হয়েছে: 40
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • ভারপ্রাপ্ত সম্পাদকঃ ফয়সাল হাওলাদার মোবাইল ০১৭৩২-৩৭৯৯৮২
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।