|

ময়মনসিংহে সবুজ বাহিনীর তান্ডবে অতিষ্ঠ ব্যবসায়ীরা

প্রকাশিতঃ ২:১৫ অপরাহ্ন | নভেম্বর ০৯, ২০১৯

ময়মনসিংহে সবুজ বাহিনীর তান্ডবে অতিষ্ঠ ব্যবসায়ীরা

মোঃ কামাল, ময়মনসিংহঃ “সবুজ ভাইয়ের নির্দেশ শম্ভুগঞ্জ বাজারে ব্যবসা করতে হলে দোকান প্রতি ৫ হাজার টাকা করে চাঁদা দিতে হবে”। “এলোপাথারী গুলি ফুটিয়ে, দা উচিয়ে ফিল্মি স্টাইলে হুমকি ও ভাংচুর চালিয়ে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে বেশ কয়েকটি দোকান ঘর।

এমন ঘটনা প্রতিনিয়ত প্রকাশ্যে ঘটলেও ভয়ে কেউ মুখ খুলতে চান না। তবে এবার উপরোল্লিখিত বিষয়ের বর্ননা দিয়ে চাঁদাবাজদের নাম উল্লেখ করে অভিযোগ দিয়েছেন ময়মনসিংহ নগরীর শম্ভুগঞ্জ ৩৩ নং ওয়ার্ড মধ্য বাজারের ব্যবসায়ী মিজানুর রহমান।

অভিযোগে জানা যায়, শুক্রবার (৮ নভেম্বর) সন্ধ্যা ৭ টার দিকে “কোতোয়ালী যুবদলের সদস্য সবুজ মন্ডলসহ ২০/২৫ জন যুবক দেশিয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে প্রকাশ্যে গুলি ফুটিয়ে তান্ডব চালায় শম্ভুগঞ্জ বাজারের মুরগী ব্যবসায়ী মিজানের দোকানে”। “কিছুদিন পূর্বে মিজানের চারটি দোকানের বিপরীতে ৮০ হাজার টাকা চাদাঁ দাবী করে সবুজ মন্ডল। সময় মতো চাদাঁর টাকা না দেয়ায় এ হামলা তান্ডবের মুখে পড়তে হয়েছে বলে অভিযোগে উল্লেখ করেন তিনি”।

ব্যবসায়ী মিজান বলেন, “চাদাঁর টাকা না দেয়ায় আজ প্রানে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে আমার দোকান বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। সন্ত্রাসীরা ক্যাশ বাক্স লুট করে ৭৯ হাজার টাকা নিয়ে গেছে। ক্ষুদ্র এ ব্যবসার উপার্জিত টাকায় আমার সংসার চলে। ওদের তান্ডব থেকে আমার দোকানের কর্মচারীরা পালিয়ে প্রাণে বেচেঁছে। অস্ত্রধারী এ চাদাঁবাজদের অত্যাচারে বাজার ব্যবসায়ীরা অতিষ্ঠ, কিন্তু ভয়ে কেউ মুখ খুলতে সাহস পায় না”।

শম্ভুগঞ্জ কাচাঁবাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি মিজানুর রহমান এ ঘটনায় গত ৮ নভেম্বর রাতে কোতোয়ালী মডেল থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগে তিনি শম্ভুগঞ্জ মধ্যবাজার এলাকার আব্দুস সাত্তারের ছেলে সবুজ মন্ডল (২৮), হানিফ (২৪), মোজাম্মেল (২৪), মোস্তফা(২২)সহ অজ্ঞাত ১৫/২০ জনের নাম উল্লেখ করেন।

সূত্র জানায়, “আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় থাকলেও শম্ভুগঞ্জ বাজারে হুকুম চলে কোতোয়ালী যুবদল ক্যাডার সবুজ মন্ডল ও তার সশস্ত্র বাহিনীর”। “এক্ষেত্রে আওয়ামী লীগের একাধিক নেতার নাম ভাঙ্গিয়ে চলে তার এ আধিপত্য বাণিজ্য “। “সরকারের নানা অভিযানে যখন ক্ষোদ আওয়ামী লীগ নেতারাই তটস্থ, তখনও সবুজ মন্ডলের চাদাঁবাজি, স্ট্যান্ডবাজী চলছে একক তান্ডব আধিপত্যের মুখে”।

ঘটনা সম্পর্কে জানতে সরজমিনে কথা হয় শম্ভুগঞ্জ বাজারের সবজী ব্যবসায়ী শুক্কুর মিয়ার সাথে। তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, “দেখলাম অনেকগুলা পোলাপাইন দাও, ছুড়ি, লাঠি নিয়া আইসা মুরগীর দোকানে ভাংচুর শুরু করছে”। “ভয়ে সবাই দোকানপাট বন্ধ কইরা দেয়, পরে ওরা চইলা গেলে আবার আমরা দোকান খুইলা বইছি”। “ঘটনা সম্পর্কে একইরকম স্বীকারোক্তি দেয় আরও বেশ কয়েকজন দোকানদার”। তবে সকলেই ভয়ে নিজের নাম প্রকাশ না করার শর্তে কথা বলেন।

সূত্র জানায়, “সবুজ মন্ডলের সন্ত্রাসী তান্ডবে এলাকার ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে। তার নানা সন্ত্রাসী কার্যক্রম সম্পর্কে আইন প্রয়োগকারী সংস্থার বিভিন্ন মাধ্যমে জানানো হলেও কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি বলেও জানা যায়।

আরও জানা গেছে, “জ্বালাও পোড়াও এ সম্পৃক্ত থাকায় সবুজ মন্ডলের নামে কোতোয়ালি মডেল থানায় দুটি বিস্ফোরক মামলা রয়েছে। এছাড়াও শম্ভুগঞ্জ গরুর হাটে সরকারী সেটঘর অবৈধভাবে দখল করে সেখানে বিভিন্ন অপকর্ম করার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। সেই সেটঘরটিতে জুয়া, মাদক, অস্ত্র রাখার আশ্রয়স্থল করা হয়েছে। সম্প্রতি ময়মনসিংহ সদর সহকারী ভূমি কমিশনার সেটঘরটি ছাড়তে সবুজ মন্ডলকে মৌখিকভাবে বললেও তা এখনও কার্যকর হয়নি।

কোতোয়ালী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মাহমুদুল ইসলাম এই ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, শম্ভুগঞ্জ বাজারের অপ্রিতিকর ঘটনাটি সম্পর্কে শুনেছি। এবিষয়ে থানায় এক ব্যবসায়ী লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। কিন্তু এ বাজারটি এখন ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের আওতাধীন।

আজ বিকেলে এ বিষয়ে সিটি করপোরপশন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বাজার কমিটির বসার কথা রয়েছে। উনারা কি সিদ্ধান্ত নিবেন পুলিশ সেই অপেক্ষায় আছে। তবে সিটি কর্তৃপক্ষ বিষয়টি সুরাহা করতে না পারলে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিবো।

দেখা হয়েছে: 393
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ [email protected]
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।