|

যে গ্রামে অসুস্থ ছাড়া কেউ জুতা পরেন না

প্রকাশিতঃ ১১:০১ অপরাহ্ন | জুন ০৯, ২০১৯

যে গ্রামে অসুস্থ ছাড়া কেউ জুতা পরেন না

বিচিত্র বার্তাঃ সময়ের স্রোতে জুতা কেবল পা ধুলোমুক্ত রাখার জন্যই ব্যবহৃত হয়নি। প্রয়োজন পূরণের সীমা ছাড়িয়ে জুতা বা স্যান্ডেল হয়ে উঠেছে আধুনিক মানুষের ফ্যাশনের অন্যতম প্রধান অনুষঙ্গ। কিন্তু যদি বলা হয় জুতা বা স্যান্ডেল পরে গ্রামে হাঁটা যাবে না, স্বভাবতই থমকে যাবেন। জুতা না পরে বাড়ির বাইরে বের হওয়া যায় নাকি? এমন প্রশ্নই ঘুরপাক খাবে আপনার মাথায়।

তবে যুগ যুগ ধরে এমনটি হয়ে আসছে ভারতের তামিল নাড়ু রাজ্যের একটি গ্রামে। যেখানকার মানুষ জুতা বা স্যান্ডেল পরে গ্রামে প্রবেশ করেন না। গ্রামের প্রবেশদ্বার থেকে জুতা হাতে নেন তারা। আবার জুতা হাতে নিয়ে গ্রামের সীমানার বাইরে গিয়ে তারা এটি পায়ে দেন। অদ্ভুত রীতিনীতি মনে হলেও প্রতিদিন তা করেন এখানকার মানুষ। রাজধানী চেন্নাই থেকে ৪৫০ কিলোমিটার দূরে তামিল নাড়ু রাজ্যের ছোট্ট গ্রাম আন্দামান। ধানক্ষেত ঘেরা গ্রামটিতে ১৩০ পরিবারের বাস। এখানকার অধিকাংশ মানুষ কৃষিজীবী।

আন্দামান গ্রামের প্রবেশদ্বারেই আছে প্রকাণ্ড একটি নিম গাছ। গাছটির নিচে থাকা ভূগর্ভস্থ জলাধার থেকেই ধানক্ষেত গুলোতে চাষের পানি আসে। এখানকার রাস্তাগুলো পাথর দিয়ে আবৃত। বহু বছরের পুরোনো এ নিম গাছ থেকেই শুরু হয় গ্রামের মানুষদের জুতা খুলে হাতে নেয়া।

অনেক বয়স্ক ও খুব অসুস্থতা ছাড়া আন্দামান গ্রামের প্রতিটি মানুষ এ নিয়ম মেনে চলেন। এমনকি প্রচণ্ড গরমে মাটি যখন প্রচণ্ড উত্তপ্ত থাকে তখনও তাদের পায়ে জুতা থাকে না। গ্রামের সীমানা পার না হওয়া পর্যন্ত সবাই জুতো হাতে নিয়ে হাঁটেন। এমনকি ছোট ছোট ছেলেমেয়েরাও স্কুলে যাওয়ার পথে এ নিয়ম মেনে চলে। খালি পায়ের এ অবস্থাতেই চলে গ্রামের কাজকর্ম।

গ্রামটিতে জুতা না পরার শুরুটাও ছিল একটা বিস্ময়কর ঘটনা। ৬২ বছর বয়সী লক্ষণ ভিরাবাদরা চার দশক আগে এই গ্রামে দৈনিক মজুরির শ্রমিক হিসেবে কাজ করতেন। বর্তমানে তিনি দুবাইতে একটি নিমার্ণ কোম্পানির মালিক। এই কোম্পানিতে জনবল নিয়োগ দেয়ার জন্যে তিনি মাঝে মাঝে গ্রামে আসেন। যদিও তার গ্রামের আসার মূল উদ্দেশ্য সেটা না। শেকড়ের টানেই তিনি গ্রামে ছুটে আসেন।

লক্ষণ ভিরাবাদরা বলেন, প্রায় সত্তর বছর আগের কথা। গ্রামের প্রবেশদ্বারে ওই নিম গাছটির নিচে গ্রামের সবাই মিলে কাদামাটি দিয়ে ভগবান মুথায়ালাম্মার একটি মূর্তি তৈরি করে। পুরোহিতরা যেমন ভগবানের মূর্তি গয়না দিয়ে সাজায় এবং এর চারপাশে ঘুরে মানুষ পূজা করেন, ঠিক এভাবেই একটি যুবক জুতা পরে ভগবানের মূর্তির চারপাশে হেঁটেছিল।

তিনি বলেন, যুবকটি অবজ্ঞা করে এভাবে হেঁটেছিল কি না সেটা আজও নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তবে হাঁটতে হাঁটতে যুবকটি পিছলে মাঝখানে পড়ে যায়। ওইদিন সন্ধ্যায়ই সে রহস্যময়ভাবে জরে আক্রান্ত হয়ে পড়ে। যা সেরে উঠতে কয়েক মাস লেগে গিয়েছিল। সেই থেকে অজানা ভয় এবং বিশ্বাসে গ্রামের মানুষ আর কোনো দিন জুতা পরে না। এটা এখন জীবনের স্বাভাবিক একটি অংশ হয়ে গেছে। ৭০ বছর বয়সী আন্দামানের বাসিন্দা মুখান আরুমুগাম জানান, বয়স্ক বা খুব বেশি অসুস্থ ছাড়া গ্রামের কেউ জুতা পরেন না।

গ্রামটির মধ্যে দিয়ে হাঁটলেই দেখা যায় স্যান্ডেল বা জুতা না পরার দৃশ্য। শিশু ও কিশোর-কিশোরীরা জুতা হাতে নিয়ে স্কুলে যায়। এখানে সবাই এভাবেই চলাফেরা করে। একটি পার্স বা ব্যাগের মতো তারা হাতে করে জুতা বহন করে।

দেখা হয়েছে: 107
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ [email protected]
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।