|

রংপুর চিনিকলের রেলয়ার্ডে অবহেলায় মাটির নিচে তলিয়ে যাচ্ছে

প্রকাশিতঃ ৫:৩৯ অপরাহ্ণ | ডিসেম্বর ০৫, ২০১৮

ছাদেকুল ইসলাম রুবেল,গাইবান্ধা:

গাইবান্ধা জেলার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার মহিমাগঞ্জ রেলগাড়ি সম্বন্ধে এমন ধারনাই সবার মনে গাঁথা থাকলেও ব্যতিক্রম কিছু রেলগাড়ি একসময় এদেশে চালু ছিলো। ঝমঝম বা বিকট কোন শব্দ তুলে নয়,খুব মিষ্টি,হাল্কা,মৃদুমন্দ শব্দে এসব রেলইঞ্জিন চলাচল করতো এ দেশের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে তাদের নিজস্ব প্রয়োজনে। এজন্যে তারা সাধারণত নিজেদের জায়গায় বসানো নিজস্ব রেল লাইনই বেশি ব্যবহার করতো। আবার কখনো কখনো প্রয়োাজনের তাগিদে সরকারি রেলপথেও চলাচল করতো ।

কালের বিবর্তনে আজ এসব রেলইঞ্জিন আর রেলপথ দু’টিই বন্ধ হয়ে গেছে। বন্ধ এসব রেললাইন এবং রেলইঞ্জিন রোদ-বৃষ্টিতে পড়ে থেকে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। এমনি একটি হারানো রেলপথ আর সে পথে চলাচলকারী রেলইঞ্জিন ইতোমধ্যেই সবার অগোচরে হারিয়ে যেতে বসেছে গাইবান্ধার মহিমাগঞ্জ থেকে।

জেলার একমাত্র ভারিশিল্প কারখানা ও একদা এশিয়া মহাদেশের সবচেয়ে বড় চিনিকল হিসেবে পরিচিত মহিমাগঞ্জের রংপুর চিনিকল তাদেরআখ, চিনি, চিটাগুড়সহ নানাবিধ মালামাল পরিবহনের কাজে ব্যবহারের জন্য গত শতকের পঞ্চাশের দশকে চিনিকল চালুর সময় একটি এবং পরে ষাটের দশকে একটি ছোট রেলইঞ্জিন আমদানী করে।

মিটারগেজ লাইনে চলাচল উপযোগি এ ইঞ্জিন দু’টি চিনিকলের ভিতর থেকে প্রায় ২ কিলোমিটার দীর্ঘ নিজস্ব রেলপথ পেরিয়ে মহিমাগঞ্জ রেল স্টেশনে যাতায়াত করতো। কাজের প্রয়োজনে প্রায় সারাদিনই এ রেল ইঞ্জিন দু’টি বারবার যাতায়াত করতো এ পথে।

স্বাধীনতার পরে একটি ইঞ্জিন অকেজো হয়ে পড়লে সেটিকে ফেলে রাখা হয়। কোন একসময় কোটি টাকা মূল্যের এ ইঞ্জিনটি পুরনো লোহা-লক্কড়ের সাথে সামান্য টাকায় স্ক্র্যাপ হিসেবে বিক্রি হয়ে যায়। পরবর্তীতে একটি ইঞ্জিন দিয়েই মহিমাগঞ্জ রেল স্টেশন পর্যন্ত চিনিকলের প্রয়োজনীয় পরিবহন কাজ চালিয়ে নেয়া হতো।

কিন্তু আশির দশকের শেষের দিকে আখ ও চিটাগুড় পরিবহণ অনেকটাই সড়কপথ নির্ভও হয়ে পড়লে রেলপথের গুরুত্ব ধীওে ধীরে কমতে থাকে। নব্বইয়ের দশকে এখানে পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যায় রেলপথ ও রেল ইঞ্জিনের ব্যবহার।

এ শতাব্দির প্রথম দশকে অব্যাহত লোকসানের কারণে চিনিকলটি বন্ধ হয়ে গেলে রেলইঞ্জিনটি আখ ফেলার ডোঙ্গার অদুওে রেলপথের উপর রোদে পুড়ে-জলে ভিজে দাঁড়িয়ে আছে।

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com