|

রাজশাহীতে সাত সন্তানের জনক হয়েও বৃদ্ধাশ্রমে মকবুল হোসেন!

প্রকাশিতঃ 7:09 pm | December 04, 2018

নাজিম হাসান,রাজশাহী থেকে:
আট বিঘা সম্পত্তির মালিক ও সাত সন্তানের জনক মকবুল হোসেনের আশ্রয়ের একমাত্র স্থান এখন বৃদ্ধাশ্রমে। সংসার ও সন্তানদের মাঝে ঠায় না পেয়ে বাঘা উপজেলার সরেরহাট কল্যাণী শিশু সদন এর শাখা প্রতিষ্ঠান মমতাজ-আজিজ বৃদ্ধা নিকেতনে রয়েছে ৭০ বছর বয়সী এই মকবুল হোসেন।

সে দুড়দুড়িয়া গ্রামের মৃত সিরাজ সরকার ছেলে। অনুসন্ধানে জানা যায়, ১৯৪৮ ইং সালে লালপুর উপজেলার দুড়দুড়িয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেণ মকবুল হোসেন।

ওয়ারিস সূত্রে বাবার ও নিজের ক্রয়কৃত ৮ বিঘা সম্পত্তির মালিক হয়েছিল বর্তমানে বৃদ্ধাশ্রমে থাকা মকবুল হোসেন। ১৯৭০ ইং সালে বিয়ে করেন ছানোয়ারা বেগমের সাথে। এর গর্ভে জন্ম হয় চার ছেলে মাহাবুর, মিনারুল, আনারুল, জামরুল ও সেফালি নামের এক কন্যা সন্তানের। ২০১১ ইং সালে প্রথম স্ত্রী ছানোয়ারা জটিল রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যায়।

প্রথম পক্ষের সন্তানরা তাকে দেখভাল না করায় বিশেষ প্রয়োজন বোধে বিয়ে করেণ আয়েশা বেগম নামের এক নারীর সাথে। তার গর্ভে জন্ম নেয় এক ছেলে আলামিন ও সাবিনা নামের আরেকটি কন্যা সন্তান। সংসারের আয় ও নিজের কর্মে ভালোভাবেই চলছিল পরিবার। এরপর ২০১৭ সালে নিজেই হৃদরোগে আক্রান্ত হয়। তাকে চিকিৎসা দেওয়ার নামে কৌশলে তার ছেলে মেয়েরা তার সমস্ত সম্পত্তি রেজিষ্ট্রি করে নেই।

পরে সংসার ছাড়া হয়ে পেটের দায়ে ভিক্ষাবৃত্তি করেও চলেছেন কিছুদিন। বয়সের ভারে আর অসুস্থতায় তাও বেশিদিন করা সম্ভব হয়নি মকবুল হোসেনের। তারপর লোক মারফত খবর পেয়ে এসে উঠেন বাঘা বাঘা উপজেলার সরেরহাট কল্যাণী শিশু সদন এর শাখা প্রতিষ্ঠান মমতাজ-আজিজ বৃদ্ধা নিকেতনে। এখন এটাই তার একমাত্র আশ্রয়ের জায়গা।

সরেরহাট কল্যাণী শিশু সদনের পরিচালক শামসুদ্দিন শমেস ডাক্তার জানান, তিনি দীর্ঘ ৩৪ বছর পূর্বে এতিম, অসহায়, অনাথ, আশ্রয়হীন শিশুদের জন্য প্রতিষ্ঠিত করেণ ‘সরেরহাট কল্যাণী শিশু সদন’ নামে একটি এতিমখানা। এটি প্রতিষ্ঠিত করতে গিয়ে নিজের ও স্ত্রী মেহেরুন্নেসার প্রায় ১৭ বিঘা সম্পত্তি শেষ করেছেন এই এইতমদের জন্য। এখন সরকারি বেসরকারি সাহায্য সহযোগীতায় চলছে এই এতিম খানা। যেখানে আশ্রয়হীন হয়ে অনেক বয়স্ক বৃদ্ধারাও এসে একটু ঠাই পাওয়ার জন্য চাহিদা জানাতো।

শেষ পর্যন্ত তাদের মুখের দিকে চেয়ে ২০১৭ সালে ‘মমতাজ-আজিজ বৃদ্ধা নিকেতন’ নামে আরেকটি শাখা প্রতিষ্ঠিত করেন। এই বৃদ্ধাশ্রমের সার্বিক তত্ত্বাবধায়নে তিনি নিজে থাকলেও প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেণ তার স্ত্রী মেহেরুন্নেসা বেগম। এখানে বর্তমানে ৫৭জন বৃদ্ধা আশ্রয় পেয়েছেন। এর মধ্যে মকবুল হোসেনসহ ১২ জন পুরুষ এবং ৪৫জন নারী রয়েছে। তারা নিজ এলাকা ছাড়াও দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে এসে অবস্থান করছে।