|

রাজারহাটে স্ত্রীর সঙ্গে চাচার পরকীয়ায় স্বামীর আত্মহত্যা

প্রকাশিতঃ ১২:০৯ পূর্বাহ্ন | জুলাই ৩০, ২০১৯

রাজারহাটে স্ত্রীর সঙ্গে চাচার পরকীয়ায় স্বামীর আত্মহত্যা

এ.এস.লিমন, রাজারহাট (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধিঃ কুড়িগ্রামের রাজারহাটে স্ত্রীর সঙ্গে চাচার পরকীয়া সহ্য করতে না পেরে ২সন্তানের জনক মিটুল হোসেন (২২) আত্মহত্যা করেছে। ঘটনাটি ঘটেছে, ২৯জুলাই সোমবার সকালে উপজেলার ছিনাই ইউপির মহিধর খন্ডক্ষেত্র গ্রামে।

এলাকাবাসী ও পুলিশ জানায়, ওই গ্রামের মহির উদ্দিনের পুত্র মিটুল হোসেন দীর্ঘদিন ঢাকায় রাজমিস্ত্রির কাজ করার সুবাধে তার স্ত্রী মোছাঃ রওশনারা বেগম (১৯) চাচা শ্বশুর তছলিম উদ্দীনের সঙ্গে পরকীয়ায় লিপ্ত হয়।

বাড়ীতে এসে স্ত্রীর পরকীয়ার বিষয়টি জানতে পেরে গত ২৮জুলাই রোববার রাতে মিটুল হোসেন তার শয়ন ঘরের তীরের সাথে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করে। পরদিন ২৯জুলাই সোমবার সকালে বাড়ীর লোকজন আত্মহত্যার দৃশ্য দেখে চিৎকার দিলে প্রতিবেশীরা ছুটে এসে ফাঁস থেকে লাশ মাটিতে নামায়। টের পেয়ে প্রেমিক তছলিম উদ্দীন (৪২) দ্রুত পালিয়ে যায়।

খবর পেয়ে রাজারহাট থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুড়িগ্রাম মর্গে প্রেরণ করে।

এ বিষয়ে হত্যাকান্ডের শিকার মিটুল হোসেনের অপর চাচা মোসলেম উদ্দিন বাদী হয়ে ধর্ষনের চেষ্টার অভিযোগ এনে তার ভাই তসলিম উদ্দিনের বিরুদ্ধে রাজারহাট থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করে। ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নুরুজ্জামান হক বুলু বলেন, শ্বশুর তসলিম উদ্দিনের সাথে ভাতিজা বউ রওশনারার সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে পরকীয়ার সর্ম্পক ছিল।

এ ব্যপারে রাজারহাট থানার অফিসার ইনচার্জ কৃষ্ণ কুমার সরকার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, আত্মহত্যার বিষয়ে ইউডি মামলা এবং অভিযোগের ভিত্তিতে ধর্ষনের চেষ্টায় তছলিম উদ্দিনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের হয়েছে।

দেখা হয়েছে: 98
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।