|

লক্ষ্মীপুরে একসঙ্গে জন্ম নেওয়া সাত শিশুর মৃত্যু

প্রকাশিতঃ ৪:২১ অপরাহ্ন | এপ্রিল ১৩, ২০১৯

লক্ষ্মীপুরে একসঙ্গে জন্ম নেওয়া সাত শিশুর মৃত্যু

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধিঃ লক্ষ্মীপুরে গর্ভধারণের ৫ মাসের মাথায় একসঙ্গে এক নারীর জন্ম দেওয়া সাতটি বাচ্চাই মারা গেছে। এরমধ্যে ৩ জন ছেলে ও ৪ জন মেয়ে। নির্দিষ্ট সময়ের আগে জন্ম নেওয়ার কারণে তাদেরকে বাঁচানোও সম্ভব হয়নি।

শুক্রবার (১২ এপ্রিল) গভীর রাত থেকে শনিবার (১৩ এপ্রিল) সকাল পর্যন্ত বিভিন্ন সময় তাদের মৃত্যু হয়েছে। এরআগে রাত পৌনে ১০ টার দিকে লক্ষ্মীপুরের একটি বেসরকারি (সিটি হসপিটাল) হাসপাতালে একসঙ্গে ৭ সন্তানের জন্ম দেন নাজমা আক্তার (১৮)। তিনি সদর উপজেলার লাহারকান্দি গ্রামের পাটওয়ারি বাড়ির প্রবাসী মো. রাজুর স্ত্রী।

হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক আবদুল্লাহ নওশের ওই সাত শিশুর মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। হাসপাতাল থেকে জানা গেছে, মাত্র পাঁচ মাসের মাথায় অপরিণত অবস্থায় ওই সাত শিশুর জন্ম দেয় প্রসূতি নাজমা আক্তার।

তবে শিশুদের উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের শিশু বিভাগে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু ঢাকায় নেওয়ার আগেই ওই সাত শিশুর মৃত্যু হয়। পরিবারের লোকজন তাৎক্ষণিক মরদেহ বাড়িতে নিয়ে গেছে। তবে প্রসূতি নাজমা সুস্থ আছে।

নাজমা আক্তারের মা শাহেদা বেগম জানান, শিশুদেরকে ঢাকা নেওয়ার প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছিল। কিন্তু এরমধ্যেই তারা মারা গেছে। তার মেয়ে সুস্থ আছে।

হাসলাতালের ব্যবস্থাপক ওমর ফারুক বলেন, নির্দিষ্ট সময়ের আগে জন্ম নেওয়ায় তারা আশংকাজনক অবস্থায় ছিল। জন্মের পরই শিশুদেরকে ঢাকা নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছিল। ঢাকা নেওয়ার আগেই তারা মারা গেছে। তাদের মরদেহ পরিবারের লোকজন বাড়িতে নিয়ে গেছে।

দেখা হয়েছে: 44
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • ভারপ্রাপ্ত সম্পাদকঃ ফয়সাল হাওলাদার মোবাইল ০১৭৩২-৩৭৯৯৮২
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।