|

লক্ষ্মীপুরে মাদ্রাসা ছাত্রকে যৌন নিপীড়ন, শিক্ষক কারাগারে

প্রকাশিতঃ ৮:১১ অপরাহ্ন | সেপ্টেম্বর ০৭, ২০১৯

লক্ষ্মীপুরে মাদ্রাসাছাত্রকে যৌন নিপীড়ন, শিক্ষক কারাগারে

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধিঃ লক্ষ্মীপুরে এক মাদ্রাসার শিশু ছাত্রকে (৭) যৌন নিপীড়নের ঘটনায় শিক্ষক মো. মামুনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। শনিবার (৭ সেপ্টেম্বর) দুপুরে ছাত্রের বাবা বাদী হয়ে শিক্ষকের বিরুদ্ধে সদর থানায় এ মামলা করেন। এতে শিক্ষককে গ্রেফতার দেখিয়ে লক্ষ্মীপুর আদালতের মাধ্যমে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

নির্যাতনের শিকার ছাত্র সদর উপজেলার তেওয়ারীগঞ্জ ইউনিয়নের তাহ্ফীজুল কোরআন মাদ্রাসার প্রথম শ্রেণির ছাত্র। অভিযুক্ত মামুন একই মাদ্রাসার আরবি শিক্ষক ও পরিচালক।

জানা গেছে, বুধবার (৪ সেপ্টেম্বর) রাতে ওই ছাত্রকে শিক্ষক মামুন যৌন নিপীড়ন করেছে। পরদিন সকালে ছাত্র তার মা-বাবাকে ঘটনাটি জানায়। ঘটনাটি জানাজানি হয়ে গেলে শুক্রবার (৬ সেপ্টেম্বর) রাতে স্থানীয়রা শিক্ষক মামুনকে পিটুনি দিয়ে তেওয়ারীগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের নিয়ে যায়। পরিষদের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক ইবনে হুছাঈন ভুলু থানায় খবর দিলে পুলিশ গিয়ে শিক্ষককে আটক করে থানায় নিয়ে আসে।

লক্ষ্মীপুর সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ কে এম আজিজুর রহমান মিয়া বলেন, শিক্ষকের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। গ্রেপ্তারকৃত শিক্ষককে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়।

এদিকে তেওয়ারীগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক ইবনে হুছাঈন ভুলু বলেন, স্থানীয়রা ওই শিক্ষককে আটক করে পরিষদ কার্যালয়ে নিয়ে আসে। পরে তাকে পুলিশে সৌপর্দ করা হয়। ছাত্রের বাবাকে মামলা করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। আমরা ওই শিক্ষকের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই এবং মাদ্রাসাটির পাঠদানের অনুমতি আছে কিনা বিষয়টি খতিয়ে দেখার জন্য উপজেলা প্রশাসনকে জানানো হবে।

দেখা হয়েছে: 34
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।