|

বিভাগ প্রতিষ্ঠার ২৯ বছরে শ্রম আদালত পাচ্ছে বরিশাল

প্রকাশিতঃ ৪:৪৫ অপরাহ্ন | সেপ্টেম্বর ০২, ২০১৯

বিভাগ প্রতিষ্ঠার ২৯ বছরে শ্রম আদালত পাচ্ছে বরিশাল

খোকন হাওলাদার, গৌরনদী(বরিশাল)প্রতিনিধিঃ শ্রম আইনে দায়ের মামলাগুলো নিষ্পত্তিতে বরিশালে স্থাপিত হচ্ছে শ্রম আদালত। আইন মন্ত্রণালয় এরই মধ্যে বরিশাল শ্রম আদালতের জন্য চেয়ারম্যান পদমর্যাদায় একজন বিচারক নিয়োগ দিয়েছে। কবে নাগাদ এ আদালতের কার্যক্রম শুরু হবে তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

প্রতিষ্ঠানটির কার্যক্রম শুরু হলে বিভাগ প্রতিষ্ঠার ২৯ বছর পর শ্রম আদালতের সুবিধা পাবে বৃহত্তর বরিশালের জনগোষ্ঠী। শ্রম মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন কল-কারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের বরিশালের উপ-মহাপরিদর্শক (ডিআইজি) হিমন কুমার সাহা শ্রম আদালত স্থাপনের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, মন্ত্রণালয় থেকে তার দপ্তরে পাঠানো একটি চিঠির মাধ্যমে জানতে পারেন, বরিশাল শ্রম আদালতের জন্য চেয়ারম্যান পদমর্যাদায় একজন বিচারক নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। তবে অন্যান্য জনবল এখনও নিয়োগ দেওয়া হয়নি। এমনকি আদালত স্থাপনের জায়গাও নির্ধারণ হয়নি।

হিমন কুমার জানান, আদালতের পুরো বিষয়টি আইন মন্ত্রণালয় দেখভাল করে। জনবল নিয়োগসহ অন্যান্য প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে কবে নাগাদ এ আদালতের কার্যক্রম শুরু হবে তা আইন মন্ত্রণালয়ের এখতিয়ার। এ কর্মকর্তা ধারণা দেন, এসব প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে আদালতের কার্যক্রম শুরু করতে আরও কয়েক মাস লাগতে পারে।

বরিশাল শ্রম আদালতের জন্য নিযুক্ত চেয়ারম্যান হলেন জেলা ও দায়রা জজ পদধারী বেগম শাহনাজ সুলতানা। তিনি আগে বাগেরহাট জেলায় নারী ও শিশু নির্যাতন বিষয়ক অপরাধ দমন ট্রাইব্যুনাল-২-এর বিচারক ছিলেন। তাকে বরিশাল শ্রম আদালতের চেয়ারম্যান নিযুক্ত করে গত ৮ মে প্রজ্ঞাপন জারি করে আইন মন্ত্রণালয়।

হিমন কুমার সাহা আরও জানান, বর্তমানে তার দপ্তর থেকে দায়ের হওয়া ৫০টি মামলা খুলনা শ্রম আদালতে বিচারাধীন। তবে চলমান মামলাগুলোর নিষ্পত্তি খুলনা শ্রম আদালতেই হবে বলে আইন মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়েছে। বরিশালে শ্রম আদালত কার্যক্রম শুরুর পর নতুন মামলার নিষ্পত্তি হবে স্থানীয় আদালতে।

১৯৯১ সালে দক্ষিণাঞ্চলের ছয় জেলা নিয়ে বরিশাল বিভাগ গঠিত হয়। কয়েক বছর আগেও এ বিভাগের শিল্প প্রতিষ্ঠান মালিক ও ব্যবসায়ীদের শ্রম মন্ত্রণালয়-সংক্রান্ত সব কাজের জন্য খুলনায় যেতে হতো।

সম্প্রতি বরিশালে কল-কারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর এবং শ্রম অধিদপ্তরের কার্যালয় স্থাপিত হয়েছে। এখানে শ্রম আদালত না থাকায় ১০০ টাকা সমমানের অর্থদণ্ডের একটি মামলা নিষ্পত্তি করতেও কয়েকবার খুলনায় যাতায়াতের খরচ গুনতে হয় কয়েক হাজার টাকা। পদ্মা সেতু ও পায়রা সমুদ্রবন্দর পূর্ণাঙ্গভাবে চালুর পর এ অঞ্চলে শিল্প-কারখানা বৃদ্ধির সম্ভাবনাকে গুরুত্ব দিয়ে এখানে শ্রম আদালত স্থাপন হয়েছে বলে সংশ্নিষ্ট সূত্রে জানা যায়।

দেখা হয়েছে: 40
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন
  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।