|

সিরাজগঞ্জে খটখট শব্দে মুখর তাঁতপল্লী

প্রকাশিতঃ ১২:০৪ পূর্বাহ্ন | মে ২৬, ২০১৯

সিরাজগঞ্জে খটখট শব্দে মুখর তাঁতপল্লী

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধিঃ টানা কর্মচাঞ্চ্যলতা আর তাঁতের খটখট শব্দে মুখরিত হয়ে উঠেছে জনপদ। আসন্ন ঈদকে সামনে রেখে তাঁতপল্লীগুলো কর্মতৎপর হয়ে উঠেছে। দিন-রাত অক্লান্ত পরিশ্রম করে মহাব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন শ্রমিক ও মালিকরা।

বর্ধিত খরচের টাকার জোগান দিতেই তাঁতীরা কোমড় বেঁধে কাজ করছেন। কারণ অতিরিক্ত আয়ের অর্থ দিয়ে ঈদ উৎসবে তাদের পরিবারের সদস্যসহ স্বজনদের নতুন জামা কাপড় কিনে দেবেন। তারা জানিয়েছে, এতেই তাদের সুখ, এতেই তাদের শান্তি। এই সুখ শান্তি ভাগাভাগি করে নিতে তারা এই বাড়তি পরিশ্রমে মেতে উঠেছে।

তাঁতবস্ত্র উৎপাদনে সিরাজগঞ্জের লাখ লাখ মানুষ এই পেশার সাথে জড়িত। জেলায় উৎপাদিত তাঁতের শাড়ি, লুঙ্গি-গামছার ব্যাপক কদর রয়েছে দেশ ও বিদেশে। সারা বছরের এই সময়ে হস্ত চালিত তাঁতবস্ত্রের ব্যাপক চাহিদা দেখা দেয়। আর সেই চাহিদার কথা মাথায় রেখে তাঁতী ও শ্রমিকরা বাড়তি একটু আয়ের জন্য কোমড় বেঁধে কাজ করে চলেছেন।

ফলে বর্তমানে তাঁতের খটখট শব্দ আর তাঁত মালিক এবং শ্রমিকদের কর্মব্যস্ততায় শেষ সময়ে সরগরম হয়ে উঠেছে সিরাজগঞ্জের তাঁতপল্লী।

শ্রমিকদের সাথে কথা বলে জানা যায়, আসন্ন ঈদকে সামনে রেখে সর্বশেষ যতটুকু সময় রয়েছে ততটুকু সময়ে শাহজাদপুর, উল্লাপাড়া, রায়গঞ্জ, বেলকুচি, কামারখন্দ, চৌহালী, এনায়েতপুরে ছাতার মতো ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা অগণিত সচল তাঁত কারখানাগুলোতে পুরোদমে তাঁত বস্ত্র উৎপাদনের কাজ চলছে। তাঁতীরা সারা বছরে বস্ত্র উৎপাদন করতে গিয়ে ঋণপানের বেড়াজালে আবদ্ধ হয়ে পড়েন। এ সময়ে কারখানায় উৎপাদিত তাঁতবস্ত্র কাপড়ের হাটে বিক্রি করে সারা বছরের লোকসান পুষিয়ে নেন। এ জন্য তারা অতি ব্যস্ত সময় অতিবাহিত করে থাকেন।

সিরাজগঞ্জে কারখানায় সচল তাঁতের মধ্যে পিটলুম, হ্যান্ডলুম ও পাওয়ার লুম রয়েছে। এসব তাঁত কারখানায় সম্পৃক্ত থেকে প্রায় আড়াই লাখ তাঁত শ্রমিক জীবিকা নির্বাহ করছে। এর মধ্যে লক্ষাধিক শ্রমিক সরাসরি তাঁত বুনোন করছে। বাকিরা সূতা রঙ, নকশা তৈরি, সূতা পারি, চরকায় সূতা কাটা, সানা বয়া তৈরি, কাপড় ভাঁজ, লেবেলিং, মোড়কজাত করণ, হাটবাজারে কাপড় পৌঁছে দেয়া, কাপড় বিক্রিসহ সহ নানা কাজে অতি ব্যস্ত সময় অতিবাহিত করছেন।

ঈদ উপলক্ষে এ ব্যবসাকে কেন্দ্র করে তাঁতপল্লীর আড়াই লাখ নারী-পুরুষ মহাব্যস্ত সময় পার করছেন। নাওয়া-খাওয়ার সময় এদের হাতে এখন নেই। গভীর রাত জেগে এরা কাজ করছে। এ কাজে বড়দের পাশাপাশি শিশুরাও কাজ করে সহযোগিতা করছে। ফলে ছোট-বড় সবাই তাঁতের কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে।

তাঁত শ্রমিক সুজন সরকার ও মো. রহিম শেখ জানান, পরিশ্রম অনুযায়ী তারা মজুরি পাচ্ছেন না। তারা সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত কাজ করে সপ্তাহে ৩০০০ থেকে ৩৫০০ টাকা পর্যন্ত মজুরি পান। বাজারে কাপড়ের দাম বাড়লেও তাদের মজুরি বাড়েনি। আগের তুলনায় কাপড় তৈরিতে সময় এবং পরিশ্রম বেশি হলেও মালিক নামমাত্র মজুরি বাড়িয়েছে। ঈদকে সামনে রেখে পরিবারের চাহিদা মেটাতে বাড়তি রোজগারের আশায় রাতদিন কাজ করছেন।

দেখা হয়েছে: 40
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • ভারপ্রাপ্ত সম্পাদকঃ ফয়সাল হাওলাদার মোবাইল ০১৭৩২-৩৭৯৯৮২
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।