|

মুক্তির মরীচিকা ধারাবাহিক উপন্যাস: আরিফ আহমেদ (পর্ব ১)

প্রকাশিতঃ ৮:০৪ অপরাহ্ন | জানুয়ারী ১৯, ২০১৮

রমনা পার্কের একটি বেঞ্চে বসে বাদাম খাচ্ছে এক যুবক। ঢাকার একটি মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্র থেকে পালিয়ে এসেছে সে। আজ তার কোনো টেনশন নেই, উৎকণ্ঠা নেই, সময়ের তাড়া নেই, আছে অখন্ড অবসর। সে আজ স্বাধীন। নিজেকে এতো হালকা আর ভারমুক্ত লাগছে যে ইচ্ছে করছে পাখি হয়ে ডানা মেলে নীল আকাশে উড়ে যেতে। কেবল একটিই ভাবনা, যে ভাবেই হোক জয়ী হতে হবে। খুব দ্রুত একটি সিদ্ধান্ত নিতে হবে এখন তার। ঠাণ্ডা মাথায় চিন্তা করতে চায় সে। যে কারণে অন্য কোথাও না গিয়ে পার্কে এসে বসেছে। সে জানে তাকে খোঁজার জন্য এতোক্ষণে হুলস্থুল কাণ্ড ঘটে গেছে। হয়তো বা মরিয়া হয়ে খোঁজাখুঁজি শুরু করে দিয়েছে পুলিশ। কিন্তু সে আজ বদলে গেছে, অনেক বদলে গেছে, তাতো আর ওরা জানে না। অবশেষে একটি সিদ্ধান্তে পৌঁছে পার্কের বেঞ্চ ত্যাগ করে যুবক।

আজ হরতাল।
মিতুল রিকশায় চড়ে কলেজ থেকে ফিরছে। প্রতিদিন বাসে যাতায়াত করলেও গতকাল কে বা কারা বিরোধীদলের মিটিংয়ে বোমা মেরেছে। বেশ কয়েকজন নেতা-কর্মী হতাহত হয়েছে। তাদের কল্যাণে দেশবাসী পেলো একদিনের হরতাল।
হরতালের কর্মসূচি রাত ১২টার পর ঘোষিত হওয়ায় অনেকের তা অজানা।
হয়তো এটাই নিয়ম। মৃতদের মঙ্গলাকাক্সক্ষায় জীবিতদের হয়রানি করার নামই মনে হয় সাম্প্রতিক রাজনীতি।

বিরোধী দল বলছে, এটা সরকারি দলের কাজ। সরকারি দল বলছে, দেশে উন্নয়নের জোয়ারের ঠেলা সইতে না পেরে বিরোধী দল নিজেদের গায়ে নিজেরাই বোমা মেরেছে অর্থাৎ নিজের নাক কেটে অন্যের যাত্রা ভঙ্গ করার চেষ্টা করছে। আবার কেউ কেউ বলছে, এটা মৌলবাদীদের কাজ। দুঃখ এটাই, এদেশের সবাই কথা বলে অনুমানে। সরকার, প্রশাসন, রাজনীতিবিদ সবাই সন্দেহের ওপর ভর করেই বক্তব্য পেশ করে। যত বড় দুর্ঘটনা বা নৈরাজ্যই ঘটুক না কেন এর সঠিক কারণ এদেশে কোনোদিন উদঘাটিত হয় না। মাঝখানে হারিয়ে যায় অমূল্য কিছু প্রাণ। পুলিশ, গোয়েন্দা অন্ধকারে কিছইু খুঁজে পায় না। না পাওয়ার কারণও মনে হয় সেই গল্পটার মতো। আমেরিকা, জাপান ও বাংলাদেশের পুলিশ অফিসাররা বসে গালগপ্প মারছে কার দেশ তদন্তে কতটা এগিয়ে। আমেরিকার অফিসার বলল, আমাদের দেশে কোনো অপরাধ ঘটলে ১২ ঘন্টার মধ্যে অপরাধীকে আমরা গ্রেফতার করি। জাপানের অফিসার বলল, আমরা ৬ ঘন্টার মধ্যে অপরাধীকে গ্রেফতার করে তার শাস্তি নিশ্চিত করি। বাংলাদেশের অফিসার অনেক ভেবেচিন্তে বলল, এ আর এমনকি, আমাদের দেশে কোনো অপরাধ ঘটার ৩ ঘন্টা আগেই আমরা তা জানতে পারি, তাই কাউকে গ্রেফতার করতে হয় না, শাস্তিও দিতে হয় না। এজন্য এ হতভাগা দেশে অপরাধ ঘটার পর কমিটি হয়, চা-নাশতা খাওয়া হয়, টিভির পর্দায় বড় বড় বক্তৃতা হয়, পরিনামে কিছু সরকারি অর্থের পকেটপূজা হয়ে এক সময় সব নীরব। মাঝে মাঝে বিদেশ থেকে গোয়েন্দা আসে, এদেশের অন্ধ গোয়েন্দারা যা খুঁজে পায় না তারা তা বের করার চেষ্টা করে। তাদের চূড়ান্ত রিপোর্ট কী, জনগণ তা কোনোদিন জানতে পারে না। যেই লাউ সেই কদু। সে কথা থাক।

আজ মিতুলের খুব গুরুত্বপূর্ণ একটি ক্লাস থাকায় হরতাল উপেক্ষা করে কলেজে গিয়ে দেখে ডিপার্টমেন্টে তালা ঝুলছে। ভারাক্রান্ত মনে নানা কথা ভাবতে ভাবতে বাড়ি ফিরছে সে। বাড়িটা নিজের নয়। আশ্রিত সে। মিতুল শুন্য দৃষ্টিতে থাকায় আকাশের দিকে, প্রকৃতি মনে হয় কোনো কারণে আজ ক্ষেপে গেছে। বোশেখের কাঠফাঁটা রোদের তপ্ত তেজে খাঁ খাঁ করছে চারদিক। প্রকৃতির অশ্রুশূন্য রোদনে মানবদেহে যেন বয়ে যাচ্ছে লোনা জলের বন্যা ।

আলমাছ আলী মুন্সি ঘামতে ঘামতে বারান্দায় এসে বসেন। ঘরে ফ্যানের বাতাসে যেন আগুন বেরিয়ে আসছে। বৈঠকখানার সামনের জায়গাটা বেশ খোলামেলা হলেও বাতাস লাগছে না। তিনি এদিক ওদিক তাকিয়ে আব্দুলকে ডেকে বললেন ঘর থেকে টেবিল ফ্যানটি দিয়ে যাওয়ার জন্য। এ বাড়ির দীর্ঘদিনের বিশ্বস্ত কাজের লোক সে। প্রতিটি ঘরে একমাত্র তারই রয়েছে অবাধ যাতায়াত। সে কাছে এলে তিনি দেখেন দাবদাহে কাজের লোকটির শরীর একটুও ঘামছে না। তিনি মনে মনে বলেন, গরমটা কি তাহলে কেবল আমার জন্যই!

আব্দুল ফ্যান এনে চালু করে দিয়ে গেলে আরামে ঝিমুনি এলো আলমাছ আলীর চোখে। ক্ষণকাল পরে মফিজ মিয়া ঘামে কাকভেজা হয়ে এসে বসলো তার সামনে। সে কৃষিখেতে ছিল অথচ শরীর দেখে মনে হলো পুকুরে ডুব দিয়ে এসেছে। লুঙ্গিটাও ভেজা। মফিজ মিয়াও এ বাড়ির একজন নির্ভরযোগ্য লোক। অনেকদিন থেকে খেত-খামারের দেখাশোনা সেই করে থাকে।
আলমাছ মুন্সি একবার মফিজের দিকে আরেকবার রাস্তার দিকে তাকালেন। রাস্তাটাকে মরুভূমির মতো লাগছে। পীচ থেকে যেন ধোঁয়া উঠছে। প্রতিদিনের মতো আজ রাস্তায় কেনো ব্যস্ততা নেই, গাড়ি-ঘোড়ার ছুটাছুটি নেই, শাঁ-শো শব্দ নেই। এক নিস্তব্ধ পরিবেশ। তার কাছে মনে হলো হরতাল কোনো খারাপ বিষয় নয়। মাঝে-মাঝে হরতাল ডেকে রাস্তাঘাটের বিশ্রাম দিলে মন্দ হয় না। আল্লাহ উদরের বিশ্রামের জন্য দিয়েছেন রোজা, আর আমরা রাস্তার বিশ্রামের জন্য দিয়েছি হরতাল। ৭১-এ এমনি বিশ্রাম আমরা দিয়েছিলাম রাস্তাঘাটের। তবে তফাৎ এতটুকুই তখন ছিল শত্র“-মিত্র“র ব্যাপার আর এখন আমরা নিজেরাই নিজেদের শত্রু।

একটা চলন্ত রিকশা দেখিয়ে আলমাছ আলী মুন্সি জানতে চাইলেন, রিকশায় বসা ওই ছেলেটা কে?
ঘাড় ঘুরিয়ে দেখে মফিজ বলল, এর নাম মিতুল, পলাশডাঙ্গা কাজী বাড়িতে থাকে।
কী করে?
কলেজে পড়ে ।
স্বভাব চরিত্র কেমন জানিস কিছু?
পলাশডাঙ্গায় ভাল ছেলে হিসাবে তার খুব নামডাক।

আলমাছ মুন্সি আবার সেদিকে তাকান। কি যেন ভাবেন কিছুক্ষণ। তারপর একটা দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে ভিতরে চলে যান। মফিজ তার চলে যাওয়া পথের তাকিয়ে থাকে। এই ভয়ংকর লোকটা কঠিন কিছু ভাবছে বুঝতে পারছে সে। স্বার্থের জন্য তিনি অনেক কিছু করতে পারেন। ৭১-এ উপার্জন করেছেন অঢেল অর্থকড়ি। দখল করেছে শত শত একর জমি। রাজপ্রাসাদের মতো এই বিশাল বাড়িটা স্বাধীনতার পূর্বে ছিল এক হিন্দু মহাজনের। যুদ্ধ শুরুর কিছুদিন পর এক সকালে দেখা গেল বাড়িতে কেউ নেই। কেউ কেউ বলল রাতের আধাঁরে ওরা ভারত চলে গেছে। আবার অনেকেই মনে করে, রাজাকার আলমাছ বাড়িটা দখল করার জন্য সবার প্রাণ তুলে দিয়েছে মিলিটারিদের হাতে। তবে নিখোঁজ হওয়ার কয়েকদিন পরেই আলমাছ আলী মুন্সি তার নববিবাহিতা স্ত্রীকে নিয়ে এই বাড়িতে উঠে বললেন, ভারত যাওয়ার পূর্বে মহাজন বাড়িটা আমার কাছে বিক্রি করে গেছে। কিন্তু পরের বাড়িতে আশ্রয় থাকা আলমাছ বাড়ি ক্রয়ের টাকা যে কোথায় পেলেন তা এক রহস্যই রয়ে গেলো।

দীর্ঘশ্বাস ফেলে মফিজ ভাবে, এই বাড়িতেই একপাশে ছিল পাকিস্তানিদের ক্যাম্প। যেখানে মিশে আছে মৃত্যুর আহাজারি আর সম্ভ্রমহানির আর্তনাদ।

অপরাধ বার্তার ধারাবাহিক আয়োজন মুক্তির মরীচিকা প্রতি সাপ্তাহে একটি করে পর্ব প্রকাশ করা হবে

দেখা হয়েছে: 67
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।