|

মুক্তির মরীচিকা ধারাবাহিক উপন্যাস: আরিফ আহমেদ (পর্ব ৫)

প্রকাশিতঃ ৯:০৯ অপরাহ্ন | ফেব্রুয়ারী ১৫, ২০১৮

মিতুল প্রবাসীপুর মুন্সি বাড়িতে এসেছে আজ দু-দিন হলো। ভেতরের প্রচন্ড রাগটা কিছুতেই নিয়ন্ত্রণ করতে পারছে না। এ বাড়ির সবাই তাকে অসম্ভব খাতির করছে। চাকরবাকর থেকে গৃহকর্তা পর্যন্ত সবাই তার সেবায় নিয়োজিত।

জমিদারি ষ্টাইলের আলিশান বাড়ি। পশ্চিমে টানা বারান্দাসহ দু-তলা বাড়ি। পূর্বে একতলা লম্বা দুটো ঘর। উত্তরে আরেকটি টিনশেড ঘর, পরিত্যক্ত। দক্ষিণে খোলা মাঠ তারপর বয়ে চলেছে সুরমা নদী। অপূর্ব একটা কবিতা যেন ছড়িয়ে আছে এ বাড়ির চারপাশে। বিশাল বাড়িগুলো সব সময় জনশূন্য হয়। এ বাড়ির অবস্থাও তাই।

কাজের লোকজন বাদে মূল সদস্য দুজনকেই দেখছে মিতুল। আলমাছ মুন্সি এবং তার স্ত্রী। একজন আদর্শ নারীর সবগুলো বৈশিষ্ট্য তাঁর মধ্যে বিদ্যমান। মিতুলের সাথে মাত্র একবারই দেখা হয়েছে। দেখেই মনে হলো এ বাড়িতে খুব কষ্টে আছেন তিনি। সুন্দর পিঞ্জিরার ভেতর যেমন চটপট করে পাখি।

অবশ্য তার এ ধারণা সত্য নাও হতে পারে। মিতুলকে থাকতে দেওয়া হয়েছে পূর্বদিকের একটি ঘরে। পাশেই ছাদে উঠার সিঁড়ি। ছাদের টবে সাজানো রয়েছে নানা জাতের দেশি-বিদেশি ফুলের গাছ। বসার জন্য সী-বীচের মতো ছাতার নিচে সাজানো চেয়ার-টেবিল। অবসর সময় ও চাঁদনী রাতটা ভালোই কাটবে তার। তবে কথা বলার লোক নেই। যেন এক নিস্তব্ধপুরী।

মিতুল ঘড়ির দিকে তাকাল। প্রায় নয়টা। এখান থেকে কলেজ অনেক কাছে। আরো পরে বের হলেই চলবে। সে খাতা কলম নিয়ে টেবিলে বসলো। হঠাৎ খেয়াল করলো বড় ঘরের দরজায় গাড়িটা দাঁড়ানো। বোরকা পরিহিতা একটি মেয়ে সিড়ি বেয়ে উপর থেকে নামছে। তার হাতে ও পায়ে মোজা, মুখে নেকাব, চোখে কালো চশমা, হাতে কলেজ ফাইল। মিতুল জানালার ফাকে একদৃষ্টিতে তাকিয়ে রইলো।

এ রকম জলজ্যান্ত একটি যুবতি মেয়ে এ বাড়িতে আছে তা ভাবতেই পারেনি। গত দু-দিনে এর ছায়া পর্যন্ত দেখেনি সে। কী আশ্চর্য, কোথায় থাকে এ মেয়েটি! নিচে নেমে গাড়িতে ওঠার আগে যেখানে মিতুল থাকে সেদিকে তাকাল মেয়েটি। গাড়ি চলে যাওয়ার পথে তাকিয়ে রইলো মিতুল।

কালো বোরকা ছাড়া কিছুই দেখেনি সে অথচ তার মাথায় খুব গাঢ় একটি রেখা টেনে দিলো মেয়েটি। এ বাড়ির পরিবেশের সাথে এর কোন মিল নেই। হয়তো কোন সম্পর্কও নেই। আলমাছ আলী মুন্সির দুটি ছেলে লন্ডনে থাকে একথা তাকে অনেকেই বলেছে। কিন্তু তার একটি মেয়ে আছে এবং সে এ বাড়িতেই থাকে এরকম আভাস মিতুল কোথাও পায়নি। কেন এমন গোপনীয়তা? নাকি মেয়েটি এ বাড়ির আশ্রিতা। তাকে এভাবে ছিনিয়ে আনার পেছনে এর কোনো সম্পর্ক নেই তো ?

যতই দিন যাচ্ছে মিতুল ততই অবাক হচ্ছে। মেয়েটিকে কলেজে যাওয়া আসার সময় বাদে কখনও দেখতে পায় না সে। অন্যসময় কোথায় থাকে মেয়েটি? নিজেকে এভাবে আড়ালে রাখে কেন? প্রতিনিয়ত সে কৌতুহলী হয়ে উঠছে, তার চোখ সারাক্ষণ মেয়েটিকে খুঁজে বেড়ায়। বিকালে এবং রাতে চোখ কান খোলা রেখে সে ছাদে বসে থাকে মেয়েটিকে দেখার আশায়।

না নেই, ছায়া পর্যন্ত দেখা যায় না। একবার ভাবল কাউকে জিগ্যেস করবে কিন্তু সবাই ইচ্ছে করে যেহেতু তার কাছ থেকে গোপন রাখছে, সেখানে এতোটা আগ্রহ দেখানোটা অনুচিত হবে। এ রহস্য সে নিজেই খুঁজে বের করার অঙ্গিকার করলো।

মিতুল অন্যমনষ্কভাবে হাঁটতে হাঁটতে ছাদের রেলিঙ ধরে দাঁড়ালো। বোরকাওয়ালি ভূতটা তাকে ভীষণ ভোগাচ্ছে। যতই মাথা থেকে তা তাড়াতে চায় ততই চেপে ধরে। মাঝে মাঝে ইচ্ছে করে সবক’টা ঘর তন্ন তন্ন করে খুঁজে দেখতে। বোরকা নামক বস্তুটা কেন তৈরি হলো! একজন মানুষ নিজেকে আড়াল করে অন্য সবাইকে দেখবে এর চেয়ে হঠকারিতা আর কি হতে পারে?

নারী-পুরুষের শাব্দিক অর্থ ভিন্ন হলেও মানবিক অর্থ এক। উভয়েই মানুষ। নারীর যেমন আলাদা বৈশিষ্ট্য আছে তেমনি আছে পুরুষেরও। জন্মগতভাবেই প্রত্যেকটি মানুষ নারীর সান্নিধ্যেই বেড়ে ওঠে। কেননা নারীর গর্ভেই তার জন্ম। আবার একজন নারীর জন্মদাতা একজন পুরুষ। তাহলে ধর্মের দোহাই দিয়ে পুরুষ থেকে নিজেকে আড়াল করে রাখার জন্য প্রয়োজনীয় পরিধেয় বস্ত্র বাদে দশ গজ কাপড় দিয়ে নিজেকে ঢেকে রাখার মানেটা কী? চরিত্রের বৈশিষ্ট্য পোশাকে নয়, আচরণে।

সেজন্য শালীন পোশাকই কি যথেষ্ট নয়? ভালোটাকে ঢেকে রাখতে হয় না বরং মন্দটাকে ঢেকে রাখার প্রয়োজনীয়তা দেখা দেয়। বোরকাওয়ালি নারীরা কী নিজেকে ঢেকে রেখে প্রমাণ করেন তিনি পূর্ণাঙ্গ মানুষ নন?

একজন মানুষ নিজেকে ঢেকে রেখে রাস্তায় হাঁটছে যার কেবল চোখ দুটি খোলা, যারা এভাবে চলেন তারা কী কখনো দৃশ্যটা ভেবে দেখেছেন, মানুষ হিসাবে তখন নিজেকে কত অপূর্ণাঙ্গ মনে হয়? বোরকাপরা যদি ধর্মচার হয় তাহলে পতিতালয়ের মেয়েদেরও কী ধার্মিক বলবো? কারণ তারাও বাইরে বোরকা পরে বের হয়, অপ্রয়োজনে মানুষের সামনে যায় না।

অপরাধ বার্তার ধারাবাহিক আয়োজন মুক্তির মরীচিকা প্রতি সাপ্তাহে একটি করে পর্ব প্রকাশ করা হবে। চলবে…

দেখা হয়েছে: 96
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ [email protected]
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।