|

মুক্তির মরীচিকা ধারাবাহিক উপন্যাস: আরিফ আহমেদ (পর্ব ৬)

প্রকাশিতঃ ২:১৪ পূর্বাহ্ন | ফেব্রুয়ারী ২৩, ২০১৮

আরিফ আহমেদ

অরোরা হালকা মিউজিকে বেশ কিছু গান শুনলো। ঘুমানোর চেষ্টা করছিল, সম্ভব হয়নি। যে নদীতে সাগরের টান নেই তার আবার জোয়ার কিসের? প্রিয়জনের সঙ্গ কে না চায়। কিন্তু তার জন্য কেবল সঙ্গ নয়, এ জগতের মুক্ত আলো-বাতাসও নিষিদ্ধ।

কৃত্রিম আলো আর আবদ্ব বাতাস তার একমাত্র আপন। খোলা মাঠ, ছাদ, পুকুর-ঘাট, নদী, বাগান সবকিছু তার জন্য নিষিদ্ধ। যৌবন আর দেহ আজ তার চলমান জীবনের অন্তরায়। প্রথম প্রথম খুব কষ্ট হতো, সারাক্ষণ কান্না আসতো। বিকাল হলেই মনটা অস্থির হয়ে উঠতো বাইরে ছুুটে যাওয়ার জন্য। পোষা প্রাণির স্বাধীনতা থাকে অথচ তার নেই।

কারণ সে পোষা প্রাণিও নয়, মানুষও নয়, নারী। তবু তার ইচ্ছে হয় ঘুরে বেড়াতে। পাখির মতো আকাশে উড়তে। কলেজে যাওয়া আসার সময় মাঝে মাঝে ইচ্ছে হয় অজানায় হারিয়ে যেতে। কিন্তু কী লাভ! পুরো জগতটাই তো অসভ্য মানুষে ভরা।

নারীর আবেগ, ভালোবাসা, ইচ্ছার মূল্য তার বাবা আলমাছ মুন্সির কাছে যেমন নেই, তেমনি এ জগতে কারো কাছেই নেই। সে যেখানে যাবে ভোগের পণ্য হবে, আর তা মর্ত্যইে হোক, স্বর্গেই হোক। স্বর্গেতো নারীর অবস্থা আরো ভয়াবহ।

এ জগতে একটা পুরুষের পাশে একটা নারী থেকেই মূল্যায়ন পায় না আর সেখানো তো একটা পুরুষের পাশে থাকবে সত্তোরটা নারী, সম্মান আর ভালোবাসা যে কতটুকু পাবে তাতো বোঝাই যাচ্ছে। স্রষ্টাও নারীর সাথে প্রতারণা করেছে। এ জগতে সে কিছু পায় না, পরজগতেও না। ধর্মগ্রন্থগুলোতে স্বর্গে পুরুষের ভোগবিলাসের অফুরন্ত বর্ণনা পাওয়া গেলেও নারীর বিষয়ে তেমন কিছু পাওয়া যায় না। কারণ স্রষ্টা জানে ওরা দূর্বল, বিদ্রোহ করার ক্ষমতা ওদের নেই। দুনিয়াও পুরুষের, পরকালও পুরুষের। নারী শুধু তার বিছানায় যাওয়ার জন্য তৈরি থাকবে।

ভাবনা থামিয়ে পাশবালিশকে জড়িয়ে ধরে অরোরা। চোখ বুজে পড়ে থাকে। নির্ঘুমতা তাকে পুনরায় ঠেলে দেয় ভাবনার জগতে। কিশোরী বয়সটা কত মধুর ছিলো! স্বপ্নেরা ঘুরে বেড়াতো চোখের পাতায়। নবীন নয়নে ভ্রমররা উড়তো বাগান জুড়ে, কতো আল্পনা আঁকা হতো উদীয়মান যৌবনের ভাঁজে ভাঁজে। ক্লাস নাইনে উঠার পর থেকেই সব যেন কেমন এলোমেলো হয়ে গেলো।

বাবা একদিন মাকে বললেন, অরোরার জন্য বোরকা এনেছি। কাল থেকে বোরকা পড়ে যেন স্কুলে যায়। গাড়ি ছাড়া যেন কোনো অবস্থাতেই বাড়ির বাইরে না যায়। স্কুলে যাওয়া আসা বাদে ঘর থেকে বের হওয়া নিষেধ। এখন থেকে পর্দা করতে হবে। কখনও যদি এর ব্যতিক্রম হয় তাহলে লেখাপড়া বন্ধ হয়ে যাবে।

মা প্রতিবাদ করে বললেন, এতটুকু মেয়ে এমন কি করেছে যে তার ওপর এমনভাবে শাসন চালিয়ে দিচ্ছ। বোরকা পরার বয়স কি ওর এখনি হয়েছে?

বাবা ঠোঁট উল্টিয়ে বললেন, রাস্তা দিয়ে যখন মেয়েরা হাঁটে মানুষ বয়স দেখে না, দেখে রুপ। তোমার মেয়ে এতটা সুন্দরী না হলেও পারতো। লোকে তাকিয়ে থাকলে তো আর চোখে ধরা যায় না, তাই এই ব্যবস্থা। তাছাড়া এখন থেকে পর্দা করা উচিত। মেয়েদের যৌবনের পূর্বেই পর্দা করা ফরজ।

পাশের রুমে বসে অরোরা বাবার সব কথা শুনল। লজ্জায়, ঘৃণায় তার মরে যেতে ইচ্ছে হচ্ছিলো। তারপর থেকে আজ অবধি বাবার সামনে সে যায়নি। যা প্রয়োজন মাকে বলে। যা লাগে কাজের মেয়েরা এনে দেয়। অজান্তেই অরোরার চোখে কষ্টগলা জল ঝরে পড়লো। চোখ মুছে ছোট জানালার পাশে বসলো এসে।

সেই ছেলেটা ছাদে বসে আছে। ছেলেটাকে কয়েকদিন যাবত দেখছে সে। প্রথমে ভেবেছিল কোন অতিথি হবে হয়তো। এখন মনে হচ্ছে অতিথি নয়, জায়গির থাকতে এসেছে। এ বাড়িতে অবশ্য কতো সময় কতো মানুষই থাকে। এসব কে বা কারা তা কখনও জানতে ইচ্ছে করে না তার। ছেলেটা প্রতিদিনই ছাদে বসে থাকে, চোখে ভীষণ অস্থিরতা নিয়ে কি যেন খোঁজে। অনেক সময় গভীর রাতে দেখা যায় সে ছাদে বসে আকাশ দেখছে। নিবিষ্ট চিত্তে আকাশ তো তারাই দেখে যাদের মনে অনেক কষ্ট। আকাশের বিশালতার সাথে নিজের কষ্টের তুলনা করে ব্যথিত মানুষ কিছুটা হালকা বোধ করে।

আমি ঘরে আবদ্ধ থাকি এটা আমার কষ্ট। ছেলেটা স্বাধীন তবু সে একা থাকে, বুকে কষ্ট বয়ে বেড়ায়। তাহলে স্বাধীনতার নাম কি সুখ নয়? ছেলেটির সাথে কোথায় যেন তার একটা মিল পেয়েছে। ওকে নিয়ে ভাবতে ভালো লাগে, কাছে যেতে ইচ্ছে করে। কেন এমন হয়? বোরকা ছাড়া ছেলেটার সামনে গেলে কেমন হয়? সে সবসময় বোরকাপরা অবস্থায় আমাকে দেখে। নিশ্চয়ই ভূত দেখার মত চমকে উঠবে। অমাবশ্যার আড়ালে পূর্ণিমার জোছনা ক’জনেই তা অনুমান করতে পারে ?

বিকাল বেলায় বাবা বাড়িতে থাকেন না, যা করার এ সময়ের মধ্যে করতে হবে। কিন্তু হঠাৎ যদি চলে আসে? নাহ্, সামনে যাওয়া ঠিক হবে না। আলমাছ মুন্সি জানতে পারলে বেচারার করুণ পরিণতি কেও ঠেকাতে পারবে না। এখন নিশ্চয়ই ওকে খুব আদর-যতœ করছে। কিন্তু স্বার্থে আঘাত লাগলে মুন্সি সাহেব যে কোন হীনকর্ম করতে এতটুকু দ্বিধা-বোধ করেন না। নিজ মেয়ের অপরাধের শাস্তি নিরপরাধ একটি ছেলেকে দিতে তিনি কোনো কুণ্ঠাবোধ করবেন না তিনি। সুতরাং যা করার ঘরে বসেই করতে হবে।

ছাদে বসা ছেলেটির মনোযোগ কাড়তে অরোরা সশব্দে জানালা খুলে পর্দা সরালো অরোরা।
গোধূলীর শেষ রশ্মিটুকু তখন পশ্চিমাকাশে। আকাশের দিকে তাকিয়ে আলোর সাথে অন্ধকারের মিলন দেখছে মিতুল। আশেপাশে কোথাও শব্দ শুনে ঘাড় ঘুরিয়ে শব্দের উৎসের দিকে তাকালো সে। অস্তমিত সূর্যটা যেন জানালার আঠালো আঁধার ছিন্ন করে উদিত হল আবার। ছায়াছন্ন আলোয় ঝলমল করছে কালো দুটি চোখ। কবিতার পঙক্তির ছন্দে একই সূতায় গাঁথা আকাশ-বাতাস, সাগর-নদী সবুজশ্যামল তৃণভূমি। নিখুত কারিগরের অপূর্ব কৌশলে আঁকা ছবিটি হাসছে পর্দার ফাঁকে। মুক্তা ঝরা নি:শব্দ হাসি ছড়িয়ে পড়ছে চারদিকে। বিজলীর মত হঠাৎ সরে গেল ছবিটা।

মিতুল আপন মনে বলে উঠলো, না না তুমি যেয়ো না। আমার দেখা শেষ হয়নি। আমি অনন্তকাল তোমাকে দেখতে চাই। এই নিষ্ঠুর পর্দা তুমি সরিয়ে নাও।

সশব্দে জানালাটা বন্ধ হয়ে গেলো। মিতুল নিথর বসে রইল অনেক্ষণ। নির্ঘুম চোখে রাতে বিছানায় শুয়ে ছটফট করতে লাগলো মিতুল। পৃথিবীর সকল ঘুম যেন ত্যাগ করেছে তাকে। এপাশ-ওপাশ করতে করতে ভাবল, ভালোবাসাহীন জীবন এক ভয়ংকর অভিশাপ। না না আর কোন প্রতিজ্ঞা নয়, শপথ নয়। আমি সব ত্যাগ করলাম, ঠিক এই ছবিটাকে আমি চাই। আদিম বুনোরক্ত

শিরা উপশিরায় প্রবাহিত হয়ে গেলো তার। কঠিন এক প্রতিজ্ঞায় মুষ্টিবদ্ধ হলো হাত দুটি।
কিন্তু প্রচন্ড শক্তিতে বাঁধা দিলো বিবেক। হৃদয়ের গহিন থেকে বিদ্রোহী কেউ একজন যেন বলে উঠলো, না, না, না এই পৃথিবীর অনেক ক্ষতি করেছো তুমি। অনেক চেয়ে অনেক পেয়েছো, যা পাওনি আদায় করেছ জোর করে। কী করোনি তুমি? এবার ক্ষান্ত হও। ঘৃণা আর ধ্বংসের গভীর গর্তে ডুবতে গিয়েও উত্থিত হয়ে তুমি এখন সুন্দর ও সাফল্যের চূড়ান্ত শিখরে। এ সার্থকতাকে পায়ে ঠেলে দিয়ো না। তোমার মায়ের কথা ভাব তোমার পথ চেয়ে বসে আছেন যিনি। তাকিয়ে দেখ তোমার এই তুমি-কে, কত ঐশ্বর্য তোমার, সততা, আদর্শ আর বিশ্বাসের জ্বলন্ত প্রদীপ তুমি এখন।

নির্ঘুম চোখে রাতভর আত্মদ্বন্দের পর প্রভাতে ছাদে উঠলো মিতুল। আলো-আঁধারির মিলনক্ষণ এতো মনোহর, এতো বিমোহিতকর! মানুষের সকল প্রশ্নের উত্তর প্রকৃতি তার আশপাশে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে রেখেছে। শুধু দেখার মতো চোখ থাকলেই হয়। মিতুলের মনের মেঘ কেটে গেলো। পৃথিবীর অপূর্ব সবকিছুই ক্ষণস্থায়ী, মানুষ ইচ্ছা করলেই তা ধরে রাখতে পারে না। আমিও না হয় অরোরা নামের ভোরের আকাশটাকে হারালাম।

হারিয়ে যায় বলেই সৌন্দর্যের আকাঙ্খা এতো তীব্র। আমি তাকে অনুভব করবো কিন্তু স্পর্শ করবো না, সে চাইলে পৃথিবীর সকল অসাধ্যকে ছিনিয়ে এনে তার পায়ের কাছে বিছিয়ে দেবো। বিনিময়ে গ্রহণ করবো না কিছুই। ভোরের আলোর কাছে এই আমার নির্মল প্রতিজ্ঞা।

অপরাধ বার্তার ধারাবাহিক আয়োজন মুক্তির মরীচিকা প্রতি সাপ্তাহে একটি করে পর্ব প্রকাশ করা হবে। চলবে…

দেখা হয়েছে: 35
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • ভারপ্রাপ্ত সম্পাদকঃ ফয়সাল হাওলাদার মোবাইল ০১৭৩২-৩৭৯৯৮২
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।