|

সালিশে ১০ চোরের ১২হাজার টাকা করে জরিমানা কানধরে উঠবস

প্রকাশিতঃ ৯:০৭ অপরাহ্ন | জানুয়ারী ০৩, ২০১৮

নাজিম হাসান, রাজশাহী প্রতিনিধিঃ
রাজশাহীর তানোরে র্দুর্ধষ ১০ চোরকে সালিশ বিচারে ১২ হাজার টাকা করে জরিমানা ও কানধরে উঠবস করানোর অভিযোগ উঠেছে। গত বুধবার উপজেলার বাধাইড় ইউপির জুমারপাড়া স্কুলে রাতে সালিশ বিচারের ঘটনাটি ঘটে। সালিশ বিচারে নেতৃত্ব দেন বাধাইড় ইউপি আ’লীগ সভাপতি ইউপি চেয়ারম্যান আতাউর রহমান, সাবেক চেয়ারম্যান আ”লীগ নেতা আবুল কালাম আজাদ, ইউপি সদস্য মুকুল হোসেন, সার ব্যবসায়ী সাজাহান আলী, সাদিকুল ইসলাম, আহসান হাবিব।

১০ চোর কে আইনের আওতায় না দিয়ে এভাবে জরিমানা কানধরে উঠবস করানোর কারনে এলাকাবাসী চরম ক্ষুব্ধ।সেই সাথে চেয়ারম্যান আতাউরের বিরুদ্ধে এলাকাবাসী ফুসে উঠেছে। জানা গেছে উপজেলার মুণ্ডুমালা জুমারপাড়াসহ আশপাঁশের এলাকায় প্রায় নিয়মিত ভাবে চুরি ছিনতাই রাস্তার ট্রলি থেকে ধান নামানো থেকে শুরু করে এলাকার ধনাঢ্য ব্যক্তিদের বাড়ীতে চুরি করত ১০জন চোর । এমনকি বাধাইড় ইউপির স্বাস্থ্য কেন্দ্রের ফ্যানসহ যাবতীয় আসবাব চুরি করে এ ১০ জন চোর। তাঁরা চুরি করা মালামাল বিক্রি করত তাদের সহযোগি আকতারের দোকানে ।

কিন্তু বাকি চোরেরা আকতারের দোকানে ডিসেম্বর মাসের ৩য় সপ্তাহের দিকে চুরি করলে তাদের নিজেদের মাঝে দন্দ বাধে। এদন্দে তাঁরা নিজেরাই চুরির গোপন রহস্য ফাঁস করে দেন । আকতারের দোকানে চুরি করার পর ১০জন কে আটক করে এলাকাবাসী । আটকের পর ওই এলাকার মেম্বার মুকুলের জিম্মায় সারারাত রাখে চোর দের। সারারাত রাখার পরের দিন বাধাইড় ইউনিয়ন পরিষদে নেয়া হলে চোরদের অভিভাবকের কাছ থেকে সাদা কাগজ ও স্ট্যাম্পে সাক্ষর নিয়ে বিচারের আশ্বাস দিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয় বলে একাধিক সুত্র নিশ্চিত করেন ।

১০ চোরেরা হল উপজেলার বাধাইড় ইউপির জুমারপাড়া গ্রামের কালামের পুত্র টুটুল(২০) বাবলুর পুত্র ইমন(২০) আরমানের পুত্র মোহাম্মাদ আলী(২১) সালামের পুত্র রাজিবুল(১৭) তোফিজের পুত্র হারুন(১৮) জামালের পুত্র শাকিব (১৮) কলিমুদ্দিনের পুত্র আশিক (১৮) আব্বাসের পুত্র শামিম গেদুমুন্সির পুত্র আকতার (২৫) ও সাইদুরের পুত্র ময়েন(২৫) ।

এলাকাবাসী জানান তাঁরা এলাকার হ্নিনিত ছিনতাই কারী চোর তাদের কে এভাবে জরিমানা কানধরিয়ে উঠবস করিয়ে ছেড়ে দেওয়া মানে এলাকায় চুরি ছিনতাই বেড়ে যাওয়া । তাদের কে আইনের হাতে তুলে নাদিয়ে এভাবে জরিমানা করে ছেড়ে দেওয়া মানে চুরি করতে সহায়তা করা । আর জরিমানার টাকা যাবে কোথায় এমন প্রশ্ন এলাকাবাসীর। আবার অনেকের দাবি সালিশ বিচারে যারা ছিলেন হয় তো তাদের পকেটে যেতে পারে বলেও প্রচার রয়েছে ।

সালিশের বিচারক এলাকায় ভুমি দখলদার নামে পরিচিত বিসিআইসির বাধাইড় ইউপির সার ডিলার শাহ্‌জাহান অপরাধ বার্তাকে জানান এলাকায় শান্তি বজায় রাখার জন্য এবং আর যাতে চুরি না হয় যার কারনে সালিশ বিচারে জরিমানাসহ হালকা শাস্তি দেওয়া হয়েছে । আরেক বিচারক সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ সালিশ বিচারের কথা স্বীকার করে জানান এবিষয়ে কোন কিছু বলার থাকলে বাধাইড় ইউপির ৭নং ওয়ার্ড সদস্য মুকুলের সাথে কথা বলতে হবে।

ওয়ার্ড সদস্য মুকুলের ব্যক্তিগত মোবাইলে ফোন দেয়া হলে তার ছেলে রিসিভ করে জানান আব্বা বাড়ীতে নেই । এনিয়ে বাধাইড় ইউপির চেয়ারম্যান ইউপি আ”লীগ সভাপতি আতাউর রহমান ঘটনাটি সরাসরি অস্বীকার করেন ।

প্রসঙ্গত গত বছরের ২৪ডিসেম্বর রাতে ১০ চোরকে আটক করে মেম্বার মুকুলের জিম্মায় রাখা হয় সারা রাত। পরদিন বাধাইড় ইউনিয়ন পরিষদে অবিভাবকসহ ১০ চোরের সাক্ষর নিয়ে ছেড়ে দেন চেয়ারম্যান আতাউর রহমান । ওই সময় তিনি জানিয়েছিলেন ঘটনা সম্পর্কে অজানা। ওসি জানিয়েছিলেন বিস্কুট খাওয়ার বিল নিয়ে ঝামেলা হয়েছিল বলে জনপ্রতিনিধিরা মীমাংসা করবেন বলে শুনেছি।

দেখা হয়েছে: 74
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।